বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
263 জন দেখেছেন
"ইসলাম" বিভাগে করেছেন (1,133 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (1,133 পয়েন্ট)
মহান আল্লাহর বানী-

أَوَلَمْ يَرَ الَّذِينَ كَفَرُوا أَنَّ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ كَانَتَا رَتْقًا فَفَتَقْنَاهُمَا ۖ وَجَعَلْنَا مِنَ الْمَاءِ كُلَّ شَيْءٍ حَيٍّ ۖ أَفَلَا يُؤْمِنُونَ [٢١:٣٠]

*** আমি জীবন্ত সব কিছুই তৈরি করেছি পানি থেকে। [সুরা আম্বিয়া, ২১:৩০]

এরপর এসেছে-

وَالْجَانَّ خَلَقْنَاهُ مِن قَبْلُ مِن نَّارِ السَّمُومِ

*** এর আগে (মানুষ সৃষ্টির আগে) আমি জিন জাতিকে সৃষ্টি করেছি অত্যন্ত উত্তপ্ত আগুন থেকে [সুরা হিজর, ১৫:২৭]

وَخَلَقَ الْجَانَّ مِن مَّارِجٍ مِّن نَّارٍ [٥٥:١٥]
*** আর তিনি জিন জাতিকে সৃষ্টি করেছেন ধোঁয়াবিহীন অগ্নি-শিখা থেকে। [সুরা আর-রহমান, ৫৫:১৫]

কুরআনের যে সব আয়াতে মানুষ, অন্যপ্রানী বা জিন সৃষ্টির কথা বলা হয়েছে, প্রত্যেক আয়াতে ‘থেকে’ শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে। যেমন- মাটি থেকে, কাদা থেকে, পানি থেকে, আগুন থেকে ইত্যাদি ।
কোথাও বলা হয়নি- মাটি দ্বারা, কাদা দ্বারা, পানি দ্বারা, আগুন দ্বারা ইত্যাদি ।
এর কারণ হল, ‘মাটি দ্বারা তৈরি’ কথাটির অর্থ হল- সরাসরি মাটি দ্বারা (পুতুলের স্টাইলে) তৈরি।
কিন্তু, ‘মাটি হতে তৈরি’ কথাটির অর্থ হল- মাটি থেকে কিছু অংশ বা কিছু উপাদান নিয়ে তৈরি।

উক্ত প্রশ্নের উত্তর দেয়ার আগে বলে নিই যে, অনেক আগে নাস্তিকদের নিকট থেকে এ ধরনের একটা প্রশ্ন এসেছিল।

সেটা ছিলঃ- মানুষ ও অন্য প্রানী সৃষ্টি সম্পর্কে কুরআনে এক জায়গায় বলা হয়েছে মাটি থেকে, এক জায়গায় বীর্য থেকে, এক জায়গায় পানি থেকে। এগুলো কি পরস্পর বিরোধী নয় ?

এ ক্ষেত্রে উত্তর হলঃ- এগুলো পরস্পর বিরোধী নয়। কারণ, তিনটি কথাই বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত।
ধরুন, কেউ বলল চা বানাতে পানি লাগে, কেউ বলল চা পাতার গুঁড়া লাগে, কেউ বলল চিনি লাগে। তাহলে এগুলো পরস্পর বিরোধী হবেনা। কারণ তিনটিই লাগবে।
কিন্তু, কেউ যদি বলে অমুক লোকটি সর্বদা সত্য কথা বলে; আর কেউ বলে ঐ লোকটি সর্বদা মিথ্যা কথা বলে। তাহলে পরস্পর বিরোধী হবে।

এখন আসি আসল কথায়।
প্রথমে আগুনের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা জেনে নেয়া যাক।

আগুন হল অক্সিজেন গ্যাস(O2) ও জ্বালানীর মধ্যে সংঘটিত একটি তাপ-উৎপাদী রাসায়নিক বিক্রিয়া।একে দহন বিক্রিয়া বলে। জালানী হিসেবে ব্যবহৃত হয় বিভিন্ন ধরনের জৈব পদার্থ যেমন, কাঠ, কেরসিন, পেট্রোল, ডিজেল, মিথেন, ইথেন ইত্যাদি।

জ্বালানীসমূহ জৈব পদার্থ হওয়ার কারণে এদের প্রধান উপাদান হল কার্বন (C) ও হাইড্রোজেন(H) পরমানু।

ফলে, প্রত্যেক দহন বিক্রিয়ায় প্রধানত কার্বন-ডাই-অক্সাইড (CO2) ও জলীয় বাষ্প (H2O) উৎপন্ন হয়।

আর জলীয় বাষ্প হচ্ছে জলের/পানির গ্যাসীয় রূপ।
সুতরাং আগুনের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ হল পানি।

এ থেকে আমরা বলতে পারি, ‘জিন আগুন থেকে সৃষ্টি’ ও ‘পানি থেকে সৃষ্টি’ পরস্পর বিরোধী নয়।

*** তারা কি কুরআন অনুধাবন করতে পারে না? এটা যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নিকট থেকে আসত তাহলে এতে অনেক বৈসাদৃশ্য থাকত। [সুরা নিসা, ৪:৮২]


http://www.facebook.com/islam.21century

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
1 উত্তর
12 ফেব্রুয়ারি 2015 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mohammed Yeasin (87 পয়েন্ট)

359,964 টি প্রশ্ন

455,141 টি উত্তর

142,514 টি মন্তব্য

190,332 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...