102 জন দেখেছেন
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে করেছেন (138 পয়েন্ট)

2 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (1,898 পয়েন্ট)

শরীর হচ্ছে সব কিছুর মূল এটি অসুস্থ থাকলে মন খারাপ থাকে কাজে অনিহা তৈরি হয় জীবন কষ্টকর হয়ে উঠে তাই জীবন কে সুন্দর সুখীময় রাখতে শরীর সুস্থ থাকা একান্ত অত্যাবশ্যক আর এর জন্য আপনার করণীয় তালিকা বিশাল । তন্মধ্যে সামান্য কিছু তুলে ধরার প্রয়াস আমার : 

  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা :  নিয়মতি গোসল করা , সাবান ব্যবহার করা , পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশে বাস করা । নিজের ও চারপাশ পরিষ্কার রাখা। মানসম্মত পরিবেশ,পায়খানা ব্যবহার করা । 
  • খাদ্য গ্রহণ:পরিমিত এবং বিশুদ্ধ খাবার খাওয়া । বাসি পঁচা খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা । সুষম পরিমাণে খাদ্য গ্রহণ করা । ভেজাল খাদ্য , ফলমালিন মেশানো খাবার গ্রহণে সতর্ক থাকা । 
  • নিয়মিত খেলাধুলা ও ব্যায়াম: শরীর সুস্থ রাখার জন্য ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই । যা খেলাধুলার মাধ্যমে অর্জিত হয় । প্রতিদিন খেলা ধুলা করা । সর্বনিম্ন 30 মিনিট করি প্রতিদিন কিছু ব্যায়াম করা । এছাড়া হাটা,সাতার কাটা,সাইকেলিং বা ঘুরতে যাওয়া । 
  • সঠিক বিনোদন ও বিশ্রাম: শরীরের সাথে মনের সম্পর্ক । তাই নিয়মিত বিনোদনের একান্ত প্রয়োজন না হলে এক ঘেয়েমিতা তৈরি হবে যা মানসিক সমস্যা তৈরি করবে। শরীর বিসাদগ্রস্থ হয়ে পড়বে । এই জন্য সুন্দর মানসম্মত ছবি দেখা, খেলাধুলা উপভোগ করা , ঘুরে যাওয়া, বনভোজন,শিক্ষা সফর,বিতর্ক অনুষ্ঠান ইত্যাদি । এবং শরীর এক নাগারে কাজ করার ফলে ক্লান্ত হয়ে পড়ে এর জন্য বিশ্রামের একান্ত প্রয়োজন । তাই প্রতিদিন সঠিক পরিমাণে ঘুমানো। রাত না জাগা। রাতে বেশি রাত করে জেগে ফোন বা কম্পিউটার ব্যবহার না করা । সঠিক নিয়মে জীবনের প্রতিটিদিন অতিবাহিত করা । 
  • খারাপ অভ্যাস ত্যাগ: নেশা জাতীয় সকল প্রকার খারাপ অভ্যাস থেকে দূরে থাকা । এগুলোর কারণে শরীরে বাসা বাধে ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ, ব্রঙ্কাইটিস,ফুসফুসের প্রদাহ,ডাইবেটিস আরো নানা ধরণের মরণ ব্যাধি রোগ । এগুলো থেকে দূরে থাকতে হবে । এছাড়া নানা ধরণের খারাপ অভ্যাস যেমন খাওয়ার সময় কাচা লবণ খাওয়া উচ্চ রক্তচাপ সৃষ্টির কারণ। তাই খারাপ অভ্যাস পরিত্যাগ করা  
  • ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা: ধর্ম মানুষকে সুখময় জীবন ও রোগমুক্ত জীবন পেতে সাহায্য করে । ধর্মীয় অনুশাসন পালনের মাধ্যমে রোগমুক্ত সুস্থ শরীর লাভ করা যায় । 
আশা করি আমি আপনাকে সুস্থ থাকার কয়েকটি উপায় বলে সামান্য পরিমাণে হলেও সাহায্য করতে পেরেছি । ধন্যবাদ আপনাকে । 
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (952 পয়েন্ট)
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন

◆শরীর সুস্থ ও নীরোগ রাখার ১০০ উপায়:
১★বয়স এবং শরীরের ক্ষমতা অনুযায়ী সহজপ্রাচ্য, পুষ্টিকর ও লঘু খাদ্য খাওয়া উচিত।
২★খাবারের অন্তত আধঘন্টা পর পানি পান করা উচিত।
৩★পেটের রোগ থাকলে সামান্য উষ্ণ কিছুটা পানি পান করা উচিত।
৪★বৃদ্ধ বয়সে খাদ্যের পরিমান কমানো উচিত।
৫★সব থেকে ভালো পানি ফুটিয়ে ঠান্ডা করে খাওয়া।
৬★যেই ঘরে অক্সিজেন সমৃদ্ধ মুক্ত বায়ু চলাচল করতে পারে, সেই ঘরে বসবাস করা উচিত।
৭★প্রতিদিন কিছুক্ষণ রোদে থাকলে দেহ সুস্হ ও নীরোগ থাকে।
৮★ভোরবেলা ভ্রমন করা সবচেয়ে ভালো ব্যায়াম।
৯★গায়ে হলুদ বা সরষের তেল মেখে গোসল করা উচিত।
১০★গোসলের পানিতে সামান্য লবণ মেশানো উচিত।
১১★গা-হাত-পা ভালো করে রগড়ে গোসল করা কর্তব্য।
১২★প্রত্যেক সুস্হ মানুষের প্রতিদিন ৬-৮ ঘন্টা ঘুমানো উচিত। রাতজাগা ক্ষতিকর।
১৩★শিশু ও রোগী ছাড়া দিনে ঘুমানো উচিত নয়।
১৪★বমির ভাব হলে কয়েক ফোঁটা পেঁয়াজের রস সামান্য গরম পানিতে মিশিয়ে খাওয়া উচিত।
১৫★রোগীর ঘুম ভাঙ্গানো উচিত নয়।
১৬★হঠাত্‍ করে গরম থেকে ঠান্ডায় বা ঠান্ডা থেকে গরমে যাওয়া উচিত নয়।
১৭★মলমূত্রের বেগ আটকে রাখা শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক।
১৮★কোন রোগীর ব্যবহার করা জিনিস বা আসবাবপত্র ব্যবহার করা ঠিক নয়।
১৯★'মরিচাদি তেল' লাগালে মুখের যেকোন কালো দাগ বা চোখের কোণের কালো দাগ উঠে যায়।
২০★রোগীর পোশাক ও বিছানা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হওয়া উচিত এবং মাঝে মাঝে রোদে দেওয়া উচিত।
২১★শিশুদের দিনে ৪-৫ বার এবং অন্যদের সকাল ও সন্ধায় ২ বার মল পরিত্যাগ করা উচিত।
২২★সুস্হ মানুষের দিনে ৪-৬ বার প্রসাব করা উচিত।
২৩★স্বাভাবিক ঘাম বেরনোকে কোনভাবেই বন্ধ করা উচিত নয়। বাতাস লেগে ঘাম গায়ে শুকানো ঠিক নয়।
২৪★কোন মানসিক চাপের মধ্যে থাকা চলবে না।
২৫★টয়লেট রুচিসম্মত হতে হবে।
২৬★জ্বর হলে ডাল বা সবজি দিয়ে আটার রুটি, দুধ ও নানা রকম ফল খাওয়া উচিত।
২৭★কায়িক পরিশ্রম করা উচিত।
২৮★অতিরিক্ত তেলেভাজা বা মশলাযুক্ত খাদ্য পরিহার করা উচিত।
২৯★পেট কখনো খালি রাখা ঠিক নয়।
৩০★অসময়ে ভোজন, বেশি ভোজন বা অনভ্যস্ত দ্রব্য খাওয়া পরিহার করা উচিত।
৩১★চিত্‍কার, বক্তৃতা বা কোন কারনে স্বর ভেঙ্গে গেলে সামান্য হলুদের গুঁড়া ও চিনি ১ গ্লাস সামান্য গরম পানিতে মিশিয়ে খাওয়া উচিত।
৩২★ব্রণ হলে ঠান্ডা জাতীয় খাদ্য এবং মিছরীর সরবত খাওয়া উচিত। শিমুলের ছাল বেঁটে ব্রণের ওপর লাগালে ব্রণ সেরে যায়।
৩৩★অল্প আলোতে পড়াশুনা করা অথবা জোরালো আলোর দিকে বেশিক্ষণ চেয়ে থাকা ঠিক নয়।
৩৪★উপবাস, অতিরিক্ত ব্যায়াম বা পরিশ্রম শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক।
৩৫★উচ্চস্বরে বা চিত্‍কার করে কথা বলা পরিহার করা উচিত।
৩৬★মানসিক উত্তেজনা এড়িয়ে চলা উচিত।
৩৭★উবু হয়ে বসা বা গালে হাত দিয়ে বসা ঠিক নয়।
৩৮★কোঁথা দিয়ে মল পরিত্যাগ করা উচিত নয়।
৩৯★অতিরিক্ত ঘুম বা দিবানিদ্রা, কুসংসর্গ বা কুরুচিপূর্ণ বই পড়া পরিহার করা উচিত।
৪০★শরীর ও মন পবিত্র রাখা প্রয়োজন।
৪১★মাছ, মাংস ও দুধ একসাথে খাওয়া ঠিক নয়।
৪২★রাতের বেলা দই খাওয়া পরিহার করা উচিত।
৪৩★চৈত্র মাসে গুঁড় বা মিষ্টি না খাওয়াই ভালো।
৪৪★সূর্য বা চন্দ্রগ্রহণ যতক্ষণ থাকে, ততক্ষণ কোন খাবার খাওয়া উচিত নয়।
৪৫★কার্তিক মাসে অতি অল্প খেতে হয় অর্থাত্‍ যত কম খেলে চলে।
৪৬★চৈত্র, বৈশাখ ও কার্তিক মাসে মাছ না খাওয়াই ভালো।
৪৭★পৌষ মাসে অন্যান্য মাসের চেয়ে খাদ্য বেশি খাওয়া উচিত।
৪৮★পূর্ণিমা বা অমাবস্যাতে মাছ, মাংস ও ভাত না খাওয়াই ভালো। আটার রুটি বা ফল খাওয়া উচিত।
৪৯★মুড়ি বা মধু খেলে পানি খেতে নেই।
৫০★তাল ও কলা, কলা ও গুঁড় অথবা চিনি ও বাতাসা একসাথে খাওয়া ঠিক নয়।

https://free.facebook.com/badshahniazulhasanjewel/about?lst=100007432598691%3A100007432598691%3A1530793779&refid=17

করেছেন (952 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

৫১★পানিতে মলমূত্র পরিত্যাগ করা উচিত নয়।
৫২★ভোরে হাত-মুখ ধুয়ে ১ গ্লাস ঠান্ডা পানি পান করা উচিত।
৫৩★রবিবারে মাছ ও মসুরীর ডাল না খাওয়াই ভালো।
৫৪★দাঁড়িয়ে অথবা সূর্য বা চন্দ্রের দিকে মুখ করে প্রসাব করা উচিত নয়।
৫৫★বুধবার ক্ষৌরকর্ম করা ভালো নয়।
৫৬★রাতে শাক খাওয়া ঠিক নয়।
৫৭★লো-প্রেসার রোগীদের বিশ্রামের প্রয়োজন বেশি। একদম উপবাস নয়।
৫৮★রাতে আহারের পর কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করে ঘুমোতে যাওয়া উচিত।
৫৯★প্রতিদিন কম করে হলেও ২-৩ মাইল হাঁটা উচিত। ভোরবেলা খালি পায়ে হাঁটা ভালো।
৬০★পরপর কয়েকদিন ইলিশ মাছ খাওয়া ঠিক নয়।
৬১★কলাপাতা মেঝেতে পেতে আসন গেড়ে ভাত খেলে কমপক্ষে ২৮টি রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
৬২★পানি যতটা বেশি খাওয়া যায়, ততই ভালো।
৬৩★ফল কেটে বেশিক্ষণ রাখা ঠিক নয়। বাইরের কাটাফল খাওয়া উচিত নয়।
৬৪★আম, আনারস বা চর্বি খেলে দেহের উজ্জ্বলতা বাড়ে। আনারস খাওয়ার সাথে সাথে দুধ খেলে তত্‍ক্ষনাত্‍ মৃত্যু ঘটে। অতিরিক্ত চর্বি খাওয়া পরিহার করা উচিত।
৬৫★বৃষ্টিভেজা থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকা ভালো।
৬৬★কাঁচা শাকসবজি ও ফলমূল ভালো করে ধুয়ে খাওয়া উচিত।
৬৭★সপ্তাহে ৩-৪ বার শরীরে জীবাণুমুক্ত সাবান যেমন-লাইফবয় ব্যবহার করা উচিত।
৬৮★খালি পেটে চা খাওয়া ঠিক নয়।
৬৯★ব্রণ ও চুলকানিতে চিরতার ক্বাথ তৈরি করে প্রত্যহ সকালে মিছরী চূর্ণসহ খাওয়া উচিত।
৭০★রাতে ঘর ঝাঁড়ু দিয়ে ময়লা বাইরে ফেলা উচিত নয়।
৭১★ঘুমানোর সময় কপালের ওপর হাত রেখে ঘুমানো উচিত নয়।
৭২★রাতে ঘরের বাইরে কুলি বা এঁটোপানি ফেলা ঠিক নয়।
৭৩★বই-পুস্তক দিয়ে মাথার বালিশ বানানো বা মাথার বালিশ পা দিয়ে সরানো ঠিক নয়।
৭৪★দাঁত দিয়ে নখ কাঁটা বা পানের বোঁটা চিবানো ঠিক নয়।
৭৫★ঘরের বেঁড়া বা খুঁটিতে অথবা কোনো গাছে পান খাওয়া চুন মুছা ঠিক নয়।
৭৬★গোসল করে ভেজা কাপড় নিংড়ানো পানি পায়ে ফেলা উচিত নয়।
৭৭★ঘরবাড়ির প্রবেশপথে মলমূত্র পরিত্যাগ করা উচিত নয়।
৭৮★ঘরের বেঁড়া বা দরজার সামনে পানের পিক ফেলা উচিত নয়।
৭৯★হেঁটে হেঁটে মেসওয়াক বা দাঁত খিলাল করা ঠিক নয়।
৮০★জামা পরে বোতাম খুলে রাখা উচিত নয়।
৮১★ভাঙ্গা হাঁড়িতে রান্না করা অথবা ভাঙ্গা বাসনে খাওয়া ঠিক নয়।
৮২★খালি গায়ে থাকা উচিত নয়।
৮৩★ভাঙ্গা কোন জিনিস যেমন-ছাতা, আয়না, চিরুনী, পানীয় পাত্র প্রভৃতি ব্যবহার করা ঠিক নয়।
৮৪★ঘরে মাকড়সার জাল থাকা ঠিক নয়।
৮৫★পানির কলসি ঢেকে রাখা উচিত।
৮৬★ঘুমন্ত সন্তান কোলে নিয়ে খাদ্য খাওয়া উচিত নয়।
৮৭★জামা-কাপড় গায়ে পরা অবস্হায় সেলাই করা উচিত নয়।
৮৮★সূর্যোদয়ের পর ঘুম থেকে উঠা উচিত নয়।
৮৯★আহারের সময় ঘন ঘন পানি খাওয়া ঠিক নয়।
৯০★বাসি দুগ্ধ পান করা উচিত নয়।
৯১★ঝাঁড়ুর শলা দ্বারা দাঁত খিলাল করা ঠিক নয়।
৯২★পায়খানায় বসে ঘন ঘন থুথু ফেলা ঠিক নয়।
৯৩★সূর্যোদয় বা সূর্যাস্তের সময় আহার করতে নেই।
৯৪★ফল খেয়ে পানি খাওয়া ঠিক নয়।
৯৫★উলঙ্গ হয়ে গোসল করা উচিত নয়।
৯৬★মাথাধরা থাকলে কপালে পেঁয়াজের রস মালিশ করা উচিত বা কয়েক ফোঁটা রসুনের রস নস্যির মতো নাকে টানলে মাথাধরা সেরে যাবে।
৯৭★খেয়ে উঠে দৌড়ে যাওয়া ঠিক নয়।
৯৮★নিয়মিত দুধের সর খাওয়া ভালো।
৯৯★ব্রণ হলে নিমপাতা বা নিমফলের বিচি পানিসহ বেঁটে ৪-৫ দিন ব্রণে ব্যবহার করা উচিত।
১০০★গ্যাস্টিক থাকলে ভোরবেলা খালি পেটে সামান্য দুবলা ঘাসের রস খেয়ে পেট ভরে পানি খাওয়া উচিত।

https://free.facebook.com/badshahniazulhasanjewel/about?lst=100007432598691%3A100007432598691%3A1530793779&refid=17

টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
03 সেপ্টেম্বর 2018 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Jaman Mia (7 পয়েন্ট)
3 টি উত্তর
02 অগাস্ট 2018 "রূপচর্চা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন hasan kabir (672 পয়েন্ট)
6 টি উত্তর
19 সেপ্টেম্বর 2017 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন shajan (0 পয়েন্ট)
1 উত্তর
03 নভেম্বর 2015 "জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন ABS YEAMIN (-13 পয়েন্ট)

282,422 টি প্রশ্ন

366,638 টি উত্তর

110,346 টি মন্তব্য

152,193 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...