3,158 জন দেখেছেন
"শিক্ষা+শিক্ষা প্রতিষ্ঠান" বিভাগে করেছেন (9 পয়েন্ট)
বন্ধ

1 উত্তর

2 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (17,573 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম।

আজ "[ বিদ্যালয়ের নাম]" কর্তৃক আয়োজিত বিদায় অনুষ্ঠানের মঞ্চে উপস্থিত অত্র প্রতিষ্ঠানের পরিচালকবৃন্দ এবং উপস্থিত অত্র প্রতিষ্ঠানের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক-শিক্ষিকা মন্ডলী ও আমার প্রাণ প্রিয় বড় ভাই-বোন এবং আমার সহপাঠী সবাইকে আস্ সালামু আলাইকুম।

অত্যান্ত দুঃখ ও ভারাক্রান্ত মন নিয়ে বলতে হচ্ছে আজ আমাদের বড় ভাই-বোনদের বিদায় অনুষ্ঠান। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এটা একটা বিদায়ের আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। কারণ মন থেকে চিরতরে বিদায় দেওয়া সম্ভব হবে না। দীর্ঘদিন ধরে আমরা এই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষালাভ করে আসছি। অত্র প্রতিষ্ঠানে আপনাদের সাথে ভাই-বোনের মত কিছু খুনশুটি ছিল, তবে সেটা ছিল বন্ধুসুলভ। সাথে পাঠদানে স্যারদের আন্তিরিকতা আমাদের শিখার পাল্লাটাকে আরো ভারী করে তুলে। প্রিয়, বড় ভাই ও বোনেরা,  আপনাদের অনুসরণ করে আমরাও এগিয়ে যাচ্ছি আমাদের লক্ষে।

কিভাবে স্যারদের সম্মান করতে হয়, ছোট ভাই-বোনদেরকে শাসন করতে হয় তা আপনাদের কাছ থেকে শিখেছি। কিন্তু আজ আপনাদের বিদায়!!!!

ইচ্ছে না থাকা সত্ত্বেও আপনাদেরকে আজ আমাদের মাঝ থেকে বিদায় দিতে হচ্ছে। সবাইকেই একদিন বিদায় নিতে হবে।

আমাদের জীবনটা খুবই ছোট। আর এই স্কুল/কলেজ জীবনটা তারচেয়েও ছোট। শীতের শিশির বিন্দুর মতোই বেলা বাড়ার সাথে সাথেই তা মিলিয়ে যায়। আমরাও খুব শিগগিরই বিদায় নিয়ে আপনাদের পিছু পিছু চলে আসবো।

মায়া, মমতা আর ভালবাসা নিয়েই আমরা পৃথিবীতে বেঁচে থাকি। তাই আমরা যে পরিবারে, যে সমাজে জীবন যাপন করি, তার প্রতি আমাদের মায়া জন্ম নেয়। আর এই মায়া কাটিয়ে চলে যেতে আমাদের খুবই কষ্ট হয়। সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা হারিয়ে ফেলে মানুষ। ভাবুন এই সেদিন আমরা এই প্রতিষ্ঠানে আসছিলাম। আর এরই মাঝে বিদায়ের ঘন্টাও বেজে গেলো। আজ শারিরীক ও মানসিক ভাবে আমরা বেড়ে উঠেছি কত তাড়াতাড়ি। এভাবেই বড় হই আমরা। বড় হই আরো বড়। ছড়িয়ে পড়ি দেশে বিদেশে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার জন্য। পৃথিবী যেহেতু গোলাকার, তাই আমাদের মাঝে আবারো দেখা হবে। কথা হবে। এতেই আমরা সন্তুষ্ট থাকি। আজ শিক্ষাজীবনের একটি অধ্যায় সমাপ্ত করে পরের আরেকটি অধ্যায়ে পা রাখার উদ্দেশ্যে আপনারা বিদায় নিচ্ছেন। আপনাদের জন্য আমাদের দোয়া ও আশির্বাদ থাকবে যেন আপনারা সাফল্যের স্বর্ণ শিখরে পদার্পান করতে পারেন। আপনারা যেন ভবিষ্যতে শিক্ষাজীবনে আরো উন্নতি করে দেশ ও জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন। আমরাও আপনাদের চলা পথ ধরে এগিয়ে যেতে চাই।

সবশেষে বলি, স্কুলের এই শিক্ষাজীবনে আমাদের আচরণ বা ব্যবহারে যদি কোন কষ্ট পেয়ে থাকেন তাহলে নিজগুনে তা ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এটাই আশা করি।

যাই হোক, বিদায়ী মুহূর্তে আর কথা বাড়াবো না। এই প্রতিষ্ঠানের সকল ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষ থেকে আপনাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ও দীর্ঘায়ু কামনা করে আমি আমার বক্তব্য এখানেই শেষ করছি।

ধন্যবাদ সবাইকে



মোশারফ হোসেন পেশাগতভাবে একজন ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। কম্পিউটার-ইন্টারনেট নিয়ে তার অনেক স্বপ্ন থাকলেও, বাস্তবতার তাগিদে সেটা আর পরিপূর্নতা পায়নি । তবে তিনি তার কম্পিউটার-ইন্টারনেট নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা এবং আগ্রহকে কখনোই অঙ্কুরে বিনষ্ট হতে দেননি। বিস্ময়ের মাধ্যমে তার এই অতৃপ্ত আগ্রহটা, তৃপ্ততা খুজে পায়। বর্তমানে তিনি বিস্ময়ের সাথে আছেন, সমন্বয়ক হিসেবে।
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর

288,393 টি প্রশ্ন

373,722 টি উত্তর

113,040 টি মন্তব্য

156,933 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...