বাংলাদেশ কোন সক্ষমতা অর্জন করলে পারমানবিক বা হাইড্রোজেন বোমাসহ সামরিক শক্তিধর রাষ্টে পরিণত হবে ?

85 জন দেখেছেন
13 সেপ্টেম্বর "আন্তর্জাতিক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Hemophilic shahin (29 পয়েন্ট)
13 সেপ্টেম্বর সম্পাদিত করেছেন জুনায়েত ইসলাম শিপন
বাংলাদেশ কোন সক্ষমতা অর্জন করলে পারমানবিক, হাইড্রোজেন বোমা সহ সামরিক শক্তিশালী রাষ্টে পরিণত হতে পারবে বলে আপনি মনে করেন ???
প্রশ্নটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন...
13 সেপ্টেম্বর মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন জুনায়েত ইসলাম শিপন (10,330 পয়েন্ট)

বাংলাদেশে পারমানবিক বোমার সংখ্যা 0

এই সংখ্যাটি ৫/৬ তে করতে পারলে, 

পাশাপাশি সেনাবাহিনী, নৌ বাহিনীতে

শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি যুদ্ধ অস্ত্র যেমন:

ট্যাংক, ইয়ারফোর্স আরোও শক্তিশালী করতে

হবে তবেই বাংলাদেশ একটি শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসাবে

পরিণত হবে। 


13 সেপ্টেম্বর মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন Hemophilic shahin (29 পয়েন্ট)
ভাইয়া, কোন সক্ষমতা অর্জন করতে পারলে বাংলাদেশ পারমানবিক, হাইড্রোজেন বোমা তৈরী করে সামরিক শক্তিশালী হতে পারবে?

1 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
13 সেপ্টেম্বর উত্তর প্রদান করেছেন আরিয়ান (15,966 পয়েন্ট)
13 সেপ্টেম্বর নির্বাচিত করেছেন Hemophilic shahin
 
সর্বোত্তম উত্তর
এটি কোন সক্ষমতার উপর নির্ভর করেনা। উদাহরণস্বরূপ অস্ট্রেলিয়া নর্থ কোরিয়ার চেয়ে সবদিক থেকে এগিয়ে, কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার কোনো পারমানবিক বোমা নেই, নর্থ কোরিয়ার আছে।

বর্তমানে যতটি দেশে নিউক্লিয়ার বা ম্যাস ডিসট্রাকটিভ বোমা আছে তাদের সবাই বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন কিংবা পরবর্তীতে শক্তিশালী দেশের হুমকির সম্মুখীন হয়েই এগুলো তৈরি করেছিলো। তখন এ বিষয়ে কোনো আন্তর্জাতিক আইনও ছিলোনা, কিন্তু বর্তমানে NPT চুক্তির বরাতে যেকোনো দেশের নিউক্লিয়ার অস্ত্র তৈরি করা আন্তর্জাতিক আইনবিরুদ্ধ। কোনো দেশ এই আইন অমান্য করলে স্যাঙ্কশনের সম্মুখীন হতে হবে, ফলে উক্ত দেশের অর্থনীতি খুব দ্রুত ভেঙ্গে যাবে (যেমনটা নর্থ কোরিয়ার সাথে হচ্ছে)।

নিউক্লিয়ার বা বিধ্বংসী যেকোনো অস্ত্র তৈরিতে প্রয়োজন প্রচুর অর্থ, প্রতিটি নিউক্লিয়ার অস্ত্র তৈরিতে খরচ হয় প্রায় ২০-৫০ মিলিয়ন ডলার, এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ করতে প্রতিবছর আরও কয়েকশ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়। একটি হাইড্রোজেন বোমা তৈরি থেকে যুদ্ধ ক্ষেত্রে ফেলা পর্যন্ত প্রায় ২৭০ মিলিয়ন ডলার খরচ হয়।
এত বিশাল খরচ আর অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড ভাঙ্গার ভয়ে কোনো দেশই এই পথে পা বাড়াতে চায়না।

বর্তমান বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছে এরকম কোনো দেশ নেই। কারো সাথে কোনোরকম যুদ্ধ বাঁধার সম্ভাবনাও নেই, এরকম পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ যদি ইউরেনিয়ামের খনি নিয়েও বসে থাকে তবুও কোনো নিউক্লিয়ার অস্ত্র তৈরি করতে পারবেনা।
আন্তর্জাতিক আইন উপেক্ষা করে অস্ত্র তৈরির কার্যক্রম শুরু করলে প্রথমে জাতিসংঘ থেকে সতর্ক করা হবে, তাদের সতর্কতা উপেক্ষা করলে বাংলাদেশের সাথে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ বন্ধ করে দেয়া হবে, তবুও অস্ত্র তৈরির কার্যক্রম অব্যাহত রাখলে নিউক্লিয়ার শক্তিধর রাষ্ট্রসমূহ- বিশেষ করে পার্শ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিবে যার চূড়ান্ত ফলাফল যুদ্ধ দিয়েও শেষ হতে পারে।



একাধিক শক্তিধর রাষ্ট্র কোনো কারনে বাংলাদেশের পক্ষ নিলে তবেই নিউক্লিয়ার বোমা তৈরি করা সম্ভবপর হবে। কিন্তু এরকম কিছু কারো দুঃস্বপ্নেও ঘটবেনা।

শাকিল আহমেদ আরিয়ান ইন্টারনেট জগতের সাথে পরিচিত হওয়ার পর থেকে স্রেফ উৎসাহ বশঃত এর গভীর পর্যন্ত জ্ঞান আহরণের চেষ্টা করেছেন, যতই গভীরে গিয়েছেন ততই এর প্রতি আরও আকৃষ্ট হয়েছেন। নিজে জানার আর অন্যকে জানানোর অদম্য ইচ্ছার প্রয়াসে আজ বিস্ময়ের সাথে এতটা জড়িয়ে গেছেন। ভবিষ্যতে একজন কম্পিউটার সাইন্টিস্ট হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি, আপনাদের সকলের নিকট দোয়াপার্থী। বিস্ময় ডট কমের সাথে আছেন সমন্বয়ক হিসেবে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

187,064 টি প্রশ্ন

240,721 টি উত্তর

54,963 টি মন্তব্য

83,541 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...