বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
280 জন দেখেছেন
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে করেছেন (749 পয়েন্ট)

আমার বয়স ১৮ ওজন ৬০কেজি, সমস্যা হলো আমার পেটে

অনেক চর্বি লেগেগেছে, এমন কোনো উপাই আছে কি

যেটা দারা আমার শরির না কমিয়ে শুধু পেট কমাতে

পারবো,জানলে প্লিজ কেউ বলুন।।

2 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (5,928 পয়েন্ট)

স্বাস্থ্য বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে পেটের মেদ কমানোর জন্য সাধারণ কিছু অভ্যাস গড়ে তোলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে:

১. মেদ কমাতে লেবু দারুণ কার্যকর। পেটের চর্বি কমাতে চাইলে লেবুর রস খেয়ে সকাল শুরু করুন। এক গ্লাস কুসুম-কুসুম গরম পানিতে খানিকটা লেবুর রস নিয়ে সঙ্গে সামান্য লবণ মিশিয়ে সকালে খেতে হবে। প্রতিদিন সকালে এই শরবত খাওয়ার অভ্যাস হজম প্রক্রিয়ায় ও পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করে।

২. বাঙালি হয়ে ভাত খাওয়া চলবে না, এ কথা শুনলে অনেকেই আঁতকে ওঠেন। ধবধবে শাদা ভাতের প্রতি আকর্ষণই অন্যরকম। তবে পেটের চর্বি কমাতে চাইলে ভাত এড়িয়ে চলতে হবে। এর বদলে হোল গ্রেইন খাবার, যেমন- লাল চালের ভাত, লাল আটার রুটি, ওটস ইত্যাদি খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে।

৩. পেটের মেদ থেকে মুক্তি পেতে চাইলে মিষ্টিজাতীয় খাবার, চিনিসমৃদ্ধ কোমল পানীয় এবং অতিরিক্ত চর্বি ও তেলজাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ এসব খাবার শরীরের মেদ বাড়িয়ে দেয়।

৪. প্রতিদিন প্রচুর পানি খেতে হবে। কারণ পানি হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে এবং শরীরে ক্ষতিকর বিষাক্ত পদার্থ দূর করে। পেটের মেদ কমানোর জন্য পানি পান করা খুবই কার্যকর।

৫. প্রতিদিন সকালে দুই থেকে তিন কোয়া কাঁচারসুন খেয়ে তারপর এক গ্লাস লেবুর রস মেশানো পানি খেলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া ভালো হয় এবং বাড়তি ওজন তাড়াতাড়ি কমে।

৬. পেটে যদি চর্বিও পরিমাণ বেশি হলে আমিষজাতীয় খাবার এড়িয়ে চলাই ভালো। পেটের মেদ ঝরাতে শাকসবজি ও ফল বেশি খেতে হবে। প্রতিদিন সকালে ও সন্ধ্যায় প্রচুর ফল খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে। এতে শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সরবরাহ করার পাশাপাশি বিভিন্ন ভিটামিন এবং মিনারেলের ঘাটতিও পূরণ হবে।

করেছেন (5,928 পয়েন্ট)

★ ব্যায়াম ছাড়া মেদ কমানোর ১০ উপায় ★

দীর্ঘ সময় বসে বসে কাজ করা, দৈহিক পরিশ্রম কম হওয়ার কারণে পেটে মেদ জমতে থাকে। ফলে শরীরচর্চার সময় যারা বের করতে পারছেন না, তারা প্রতিদিনকার কিছু সহজ অভ্যাসের মাধ্যমে কমিয়ে ফেলতে পারেন শরীরের অতিরিক্ত মেদ।

* প্রতিদিন তিন কোয়া রসুন: প্রতিদিন সকালে উঠেই খালি পেটে ২/৩ কোয়া রসুন চিবিয়ে খেয়ে নিন, এর ঠিক পর পরই পান করুন লেবুর রস। এটি আপনার পেটের চর্বি কমাতে দ্বিগুণ দ্রুতগতিতে কাজ করবে। তাছাড়া দেহের রক্ত চলাচলকে আরো বেশি সহজ করবে এটি। 

* লেবুর রস: এক গ্লাস গরম পানিতে অর্ধেকটা লেবু চিপে নিন, এতে এক চিমটি লবণ মিশিয়ে নিন। চিনি দেবেন না। এবার পান করুন প্রতিদিন সকালে। এটি আপনার দেহের বাড়তি মেদ ও চর্বি কমাতে সব চেয়ে ভালো উপায়। 

* চিনিযুক্ত খাবার খাবেন না: মিষ্টি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার, কোল্ড ড্রিংকস এবং তেলে ভাজা স্ন্যাক্স থেকে দূরে থাকুন। কেননা এ জাতীয় খাবারগুলো আপনার শরীরের বিভিন্ন অংশে, বিশেষত পেট ও উরুতে খুব দ্রুত চর্বি জমিয়ে ফেলে। তাই এগুলো খাওয়ার পরিবর্তে ফল খান।

* মশলা খান: রান্নায় অতিরিক্ত মশলা ব্যবহার করা ঠিক নয়। তবে কিছু মশলা ওজন কমাতে সাহায্য করে ম্যাজিকের মতো। রান্নার ব্যবহার করুন দারুচিনি, আদা ও গোলমরিচ। এগুলো আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাবে ও পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করবে।

* মাংস থেকে দূরে থাকুন: অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত মাংস যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। এর বদলে বেছে নিতে পারেন কম তেলে রান্না করা চিকেন।

* পর্যাপ্ত ঘুমান: ঘুম ভালো হলে শরীরে মেদ কম জমে এবং জমা মেদও ঝরতে সাহায্য করে।

* মানসিক চাপের বোঝা বইবেন না : মানসিক চাপ যতটা পারবেন কম নেওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ মানসিক চাপের ফলে আপনার শরীরে নানারকম সমস্যা তৈরি হতে পারে। ফলে শরীরের পাচন ক্ষমতা কমে যায় এবং শরীরে মেদ জমতে শুরু করে।  

* প্রচুর পানি পান করুন: প্রতিদিন প্রচুর পানি পান করার ফলে এটা আপনার দেহের মেটাবলিজম বাড়ায় ও রক্তের ক্ষতিকর উপাদান প্রস্রাবের সঙ্গে বের করে দেয়। মেটাবলিজম বাড়ার ফলে দেহে চর্বি জমতে পারে না ও বাড়তি চর্বি ঝরে যায়।

* কাজে সক্রিয় হন: অফিসের কাজ আজকাল বসে বসে হয়, সেখানে শরীরের সচল হওয়ার খুব একটা সুযোগ নেই। তাই চেষ্টা করুন একটি আগের বাসস্টপে নেমে হেঁটে বাকি রাস্তা যান, সিঁড়ি দিয়ে উঠুন। এর ফলে শরীর অনেকটা সক্রিয় হয়। মেদ জমার সুযোগই পাবে না।

* প্রতিদিন ফল ও সবজি খান: প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় এক বাটি ভর্তি ফল ও সবজি খাবার চেষ্টা করুন। এতে আপনার শরীর পাবে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল ও ভিটামিন। আর এগুলো আপনার রক্তের মেটাবলিজম বাড়িয়ে পেটের চর্বি কমিয়ে আনবে সহজেই।

সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া

করেছেন (749 পয়েন্ট)

এতে হজম পক্রিয়া কমে যাবে????/?/////

করেছেন (5,928 পয়েন্ট)

আপনার কথা বুঝিনি ...

হজম প্রক্রিয়া কমবে কেন? 

0 টি পছন্দ
করেছেন (1,044 পয়েন্ট)

রতিদিনের ব্যস্ততার মাঝে নিজের জন্য একান্ত কিছু সময় বের করা যেন দুরূহ ব্যাপার। কিন্ত শত ব্যস্ততার মাঝে থাকলেও শরীরের মেদটা যেন কমতেই চায় না। বরং দিন দিন যেন বেড়েই চলছে। অনেকের সময় করে নিয়মিত হাঁটা কিংবা জিমে যাওয়াও সম্ভব হয় না। এমন ব্যস্ত মানুষদের জন্য সহজ সমাধান হচ্ছে ইয়োগা। ইয়োগা শুধু শরীরকে ফিট রাখতেই নয় বরং নিজের মনকে শান্ত করতেও এর উপকারিতার জুড়ি নেই।

মহিলাদের শরীরের সবচেয়ে সবচেয়ে লক্ষণীয় মেদ হল - হঠাৎ বেড়ে যাওয়া পেটের মেদ। পেটের মেদ যত সহজে বেড়ে যায় তেমনি এই মেদ কমানো ততটাই কষ্টকর। প্রতিদিন মাত্র আধা ঘণ্টা কিংবা এক ঘণ্টা সময় বের করে, করে ফেলুন নিম্নের কয়েকটি ইয়োগা। শুরুর দিকে কোন শক্ত বেঞ্চ, চেয়ার বা পরিবারের কারো সাহায্য নিয়ে প্রতিটি পজিশন আয়ত্ত করার চেষ্টা করুন, ধীরে ধীরে আপনি নিজেই কোন সাপোর্ট ছাড়া প্রতিটি আসন সহজেই করতে পারবেন।

১) ভুজুঙ্গাসন (Snake pose)

পেটের মেদ কমানোর প্রাথমিক একটি ইয়োগা হল - ভুজুঙ্গাসন। এই আসনটি সাপের অবস্থানের সাথে মিলে যায় দেখে একে সংস্কৃত ভাষায় বলা হয় - ভুজুঙ্গাসন।

কিভাবে করবেন -

image

  • উপুড় হয়ে হাত দুপাশে সোজা রেখে শুয়ে পড়ুন। শরীরের সব ভার ছেড়ে দিয়ে রিল্যাক্স হয়ে শুয়ে থাকুন।
  • এবার উপুড় হয়ে শুয়ে হাত দুটি দুপাশে আনুন এবং হাতের তালু মাটির সাথে লাগিয়ে রাখুন। খেয়াল রাখুন হাতের আঙুল যেন কাঁধের সামনে এগিয়ে না যায়। একই সাথে পা দুটি জোড়া করে লাগিয়ে মাটিতে স্পর্শ করিয়ে রাখুন।
  • এবার শ্বাস নিয়ে কোমরের উপর চাপ দিয়ে নাভি থেকে শরীরে উপরের অংশ ধীরে ধীরে মাটি থেকে উপরের দিকে উঠান। মাথাকে ধনুকের মত বাঁকা করে যতটা হেলানো সম্ভব ততটা বাঁকা করুন এবং নিশ্বাস ধরে রেখে মনে মনে ১০ থেক ২০ বার পর্যন্ত গোনা শুরু করুন।
  • এরপর নিশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে ধীরে ধীরে শরীরের উপরের অংশকে আবার মাটির সাথে লাগান এবং শরীরের সমস্ত ভার ছেড়ে কতক্ষন বিশ্রাম নিন।
  • শুরুর দিকে এই আসনটি ৫ বার করে করুন ধীরে ধীরে ১০ বার করে করার চেষ্টা করুন।

২) উষ্ট্রাসন (Camel Pose)

ইয়োগার শুরুর দিকে মূলত সহজ আসনগুলি আয়ত্ত করা উচিৎ। যেসব আসনে পেটের চর্বিতে টান পড়বে সেই আসনগুলি বেশি করে করলে মেদ দ্রুত কমে আসবে। এমনি আরেকটি আসন হল - উষ্ট্রাসন।

কিভাবে করবেন -

image

  • কোমরে হাত দিয়ে হাঁটু গেড়ে মেরুদণ্ড এবং মাথা সোজা রেখে মেঝেতে আসন গ্রহণ করুন। পায়ের পাতা যেন শরীরে পেছনে সোজা অবস্থায় থাকে।
  • এরপর ধীরে ধীরে মাথা এবং মেরুদণ্ডকে পেছন দিকে বাঁকা করুন। যতটা সম্ভব বাঁকা করুন এবং পাঁচবার এই অবস্থায় শ্বাস নিন। মাথা হেলানোর পর হাত দুটি আপনার পায়ের পাতার উপর রেখে শরীরের ভর নিয়ন্ত্রণ করুন।
  • খেয়াল রাখুন এই আসনটি করার সময় কোমরের উপর চাপ দিয়ে শরীরের ঊর্ধ্বাংশ বাঁকা করবেন না। পূর্ণ ধারণা পেতে আসনটির ভুল অবস্থান ছবির মাধ্যমে দেখানো হল।
  • পাঁচবার শ্বাস নেয়ার পর হাত ছেড়ে ধীরে ধীরে শরীরের উপরের অংশকে সোজা করুন।
  • এই আসনটি ৫ থেকে ১০ বার করে করার চেষ্টা করুন।

৩) পদহস্তাসন (Standing Forward Bend)

এই আসনে পেটের মেদ একদম সংকুচিত হয়ে যায়।

কিভাবে করবেন -

image

  • মেরুদণ্ড এবং মাথা সোজা রেখে দাঁড়ান। হাত দুপাশে সোজা রাখুন এবং পা দুটি একসাথে জোড়া লাগিয়ে রাখুন।
  • এবার জোরে শ্বাস নিয়ে হাত সোজা করে উপরের দিকে উঠান।
  • এবার নিশ্বাস ত্যাগ করতে করতে হাতকে নিচে নামাতে নামাতে পুরো শরীর সামনের দিকে বাঁকা করুন।
  • শরীরকে কোমরের উপর থেকে সম্পূর্ণ বাঁকা করে নিচের দিকে হাত সোজা রেখে নামিয়ে ফেলুন।
  • এবার হাঁটু বাঁকা না করে হাত সোজা রেখে হাতের আঙুল মেঝেতে স্পর্শ করার চেষ্টা করুন।
  • শুরুর দিকে আঙুল পায়ের সাথে লাগানোর চেষ্টা করুন। কিছুদিন আয়ত্ত করার পর মেঝেতে স্পর্শ করার চেষ্টা করুন।
  • শ্বাস ধরে রেখে আসনটি ৬০ থেকে ৯০ সেকেন্ড সময় ধরে রাখার চেষ্টা করুন।
  • এরপর নিশ্বাস ছেড়ে ধীরে ধীরে শরীর সোজা করে একদম সোজা হয়ে প্রথম অবস্থানে ফিরে আসুন।
  • এই আসনটি ১০ বার করে করার চেষ্টা করুন। প্রতিবার করার পূর্বে ১০ সেকেন্ড বিশ্রাম নিয়ে নিন।

৪) পবনমুক্তাসন (Wind Relieving Pose)

এই আসনটি শুধু পেটের মেদ কমাতেই নয় বরং নানা রকম পেটের এবং হজমজনিত সমস্যাও দূর করতে সাহায্য করে।

image

  • চিত হয়ে হাত দুপাশে এবং পা জোড়া লাগিয়ে সোজা হয়ে শুয়ে পড়ুন।
  • এবার এক হাঁটু বাঁকা করুন ।
  • জোরে শ্বাস নিন এবং নিশ্বাস ছাড়ার সময় হাঁটুকে বুকের কাছে আনার চেষ্টা করুন। থাই বা উরু দিয়ে অ্যাবডোমেন বা পেটের অংশে চাপ দিন। হাঁটুকে সঠিক জায়গায় রেখে দু'হাত বদ্ধ করে উরুর নিচে রেখে সজোরে চাপ দিন।
  • এরপর এই অবস্থায় আবার শ্বাস নিন এবং নিশ্বাস ছাড়ার সময় মাথাকে মাটি থেকে উঠিয়ে এনে থুতনিকে হাঁটুর সাথে লাগানোর চেষ্টা করুন।
  • ৬০ থেকে ৯০ সেকেন্ড সময় এই অবস্থায় থাকুন।
  • এরপর পুনরায় শুরুর বা প্রথম অবস্থানে ফিরে যান। এরপর একই পদ্ধতিতে অন্য হাঁটুকে উঠিয়ে আসনটির পুনরাবৃত্তি করুন।

এই অবস্থানটি ৭ থেকে ১০ বার পুনরাবৃত্তি করুন। প্রতিবার করার পূর্বে ১৫ সেকেন্ড করে বিশ্রাম নিন। আসনটি আয়ত্ত হলে একই সাথে দু'পা দিয়ে করার চেষ্টা করুন।

৫) মার্জারাসন (Cow Cat Pose or Cat Pose)

বিড়ালের অঙ্গভঙ্গি অনুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে বিড়ালাসন (বিড়াল আসন)। এই আসনের অপর নাম হলো মার্জারাসন (মার্জার আসন)। সংস্কৃত মার্জার শব্দের অর্থ হলো বিড়াল।

কিভাবে করবেন -

image

  • দুই হাতের তালু এবং হাঁটুর উপর ভর করে হামাগুড়ি দেওয়ার ভঙ্গিতে অবস্থান গ্রহণ করুন।
  • হাতের তালু ও আঙুল সামনের দিকে প্রসারিত অবস্থায় রাখুন।
  • এবার মাথা নিচু করে,পিঠকে উপরের দিকে ধনুকের মত তুলে ধরুন যেন আপনার শরীরের উপরের অংশ মেঝের সাথে সমান্তরালে থাকে।
  • এভাবে ১০ সেকেণ্ড স্থির হয়ে থাকুন।
  • এবার ধীরে ধীরে পিঠ নামিয়ে আগের অবস্থায় আসুন। এবার বুক ভরে কয়েকবার শ্বাস গ্রহণ ও ত্যাগ করুন এবং ধীরে পিঠকে নিচে নামাতে থাকুন।
  • যখন পিঠ আপনার হিপ বা নিতম্বের অবস্থান থেকে নিচে নেমে যাবে তখন ধীরে ধীরে মাথাকে উপরের দিকে তুলে পেছনের দিকে যতটা সম্ভব বাঁকানোর চেষ্টা করুন।
  • এভাবে ১০ সেকেণ্ড স্থির হয়ে থাকুন
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি উত্তর
13 ডিসেম্বর 2018 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন ArvinShanto (9 পয়েন্ট)
1 উত্তর
26 অগাস্ট 2016 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রমিচ (0 পয়েন্ট)
0 টি উত্তর
23 জানুয়ারি "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন আয়ান আলী খান (9 পয়েন্ট)
1 উত্তর
18 জুলাই 2018 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Ji limon (9 পয়েন্ট)

294,067 টি প্রশ্ন

380,680 টি উত্তর

115,095 টি মন্তব্য

161,492 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...