681 জন দেখেছেন
"অর্থনীতি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (5,333 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (5,333 পয়েন্ট)
কাঠামোগত দিক থেকে ঋণের উৎসকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যেমন: প্রাতিষ্ঠানিক উৎস ও অ-প্রাতিষ্ঠানিক উৎস।

প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ বলতে এমন ঋণ নির্দেশ করে, যেসব ঋণ সরকারি প্রতিষ্ঠান এবং সরকারের স্বীকৃত আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহ জোগান দেয়। ঋণের এসব উৎসকে প্রাতিষ্ঠানিক উৎস বলা হয়। একটি দেশে প্রাতিষ্ঠানিক ঋণদানের বিভিন্ন উৎস থাকে। বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক উৎসগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো বাণিজ্যিক ব্যাংক, শিল্প ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, গৃহনির্মাণ ঋণদান সংস্থা, সমবায় ব্যাংক, আমদানি-রপ্তানি ব্যাংক, কর্মসংস্থান ব্যাংক, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প ব্যাংক, বাংলাদেশ পুঁজি বিনিয়োগ সংস্থা, সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থাসমূহ, গ্রামীণ ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান প্রাতিষ্ঠানিক ঋণের উৎস হিসেবে কাজ করে। এগুলোর মধ্যে বিশ্ব ব্যাংক, এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংক, আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল, ইসলামিক উন্নয়ন ব্যাংক ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

অ-প্রতিষ্ঠানিক ঋণ বলতে এমন সব ঋণ নির্দেশ করে, যেসব ঋণ ব্যক্তি পর্যায়ে জোগান দেওয়া হয়। বাংলাদেশে অ-প্রাতিষ্ঠানিক ঋণের উৎসগুলো হলো গ্রাম্য মহাজন, দাদন ব্যবসায়ী, বিত্তশালী কৃষক, গ্রাম্য ব্যবসায়ী, দোকানদার, বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন ইত্যাদি।
closeWe

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
31 মার্চ 2014 "অর্থনীতি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন salehahmed (labib) (10,662 পয়েন্ট)
1 উত্তর
1 উত্তর
16 ফেব্রুয়ারি 2014 "অর্থনীতি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Ferdausi (5,333 পয়েন্ট)
4 টি উত্তর
2 টি উত্তর

258,212 টি প্রশ্ন

336,782 টি উত্তর

98,009 টি মন্তব্য

134,972 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
closeWe
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...