বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
121 জন দেখেছেন
"ওয়ার্ডপ্রেস" বিভাগে করেছেন (15,856 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (6,513 পয়েন্ট)

একটি সাইট এ ভিসিটর বাড়ানোর প্রথম ধাপই হচ্ছে সাইট ফাস্ট থাকা । আপনার সাইট যদি স্লও থাকে ফলে ভিসিটর যদি ঠিক মত ঢুকতেই না পারেন তাইলে বিরক্ত হয়ে আপনার সাইট এ দ্বিতীয় বার আর ঢুকার চেষ্টা করবে না । তা ছাড়া SEO তে ও সাইট স্পীড অনেক ভূমিকা রাখে । তো বুঝতেই পারছেন কতটা জরুরী সাইট ফাস্ট থাকা ।

আজকে আপনাদের প্রায় সব মূল কাজগুলোই দেখাব কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস সাইট কে ফাস্ট করবেন । চলুন শুরু করি ।

শুরু করার আগে এখান থেকে আপনার সাইট এর বর্তমান স্পীড মেপে নিন । নিচের কাজগুলো করার পর আমরা দেখবো কত টুকু সফল হয়েছি ।

speed test

বেসিক কাজ দিয়ে শুরু করিঃ

প্লাগিন সংখ্যা কম রাখুন । বেশি প্লাগিন ব্যাবহারের ফলে সাইট স্লও হয়ে যায় । ঠিক মত প্লাগিন সিলেক্ট করবেন । যেই প্লাগিন এ যত বেশি অপশন মনে রাখবেন ঐ প্লাগিন এ তত বেশি কোড সুতরাং তত বেশি স্লও করবে । একটি কাজের জন্য অনেকগুলো প্লাগিন থাকতে পারে । এর মধ্যে যেটাতে আউট জিনিস কম থাকবে ওটা ব্যাবহার করবেন ।

wordpress plugins

Spam Comments ডিলিট করে দিন । হাজার হাজার স্পাম কমেন্ট ডাটাবেজ এ থাকলে সাইট স্লও হয়া স্বাভাবিক । প্রত্যেক দিন স্পাম কমেন্ট মনে করে ডিলিট করে দিবেন ।

spam comments

post revisions ডিলিট করুন । স্পাম কমেন্ট ডিলিট এর মতই post revisions  ডিলিট করুন । post revisions  হচ্ছে আপনি যখন একটা পোস্ট এডিট করে সেভ করেন তখন ওটার একটা কপি ডাটাবেজ এ সেভ হয়ে যায় । এভাবে যতবার এডিট করে সেভ করবেন ততো বার একটা করে নতুন কপি ডাটাবেজ এ যুক্ত হবে । ফলে দেখা যায় একটা পোস্ট এর অনেক গুলো কপি তৈরি হয়ে গেছে । যা ডাটাবেজ কে স্লও করে দেয় । Better Delete Revision Plugin এর সাহায্যে আপনি এই post revisions গুলো ডিলিট করতে পারবেন । তা ছাড়া আপনি ওয়ার্ডপ্রেস এর Auto Save আর post revisions এই ২ তা সিস্টেম সম্পূর্ণ ভাবেই বন্ধ করে দিতে পারেন । গুগল করুন কিভাবে করে তা পেয়ে যাবেন ।

delete post revisions

একটি ভালো Hosting সাইট থেকে hosting নিনঃ

ওয়ার্ডপ্রেস একটি গাড়ির মত । এটা ততোক্ষণ ঠিক মত চলবে যতক্ষণ এটাকে ঠিক মত জ্বালানি দিবেন ।

pumping gas

Hosting নেয়ার আগে ঠিক মত জেনে নিবেন তাদের সার্ভার ২৪ ঘণ্টা আপ থাকে নাকি , তাদের ব্যান্ডউইথ স্পীড কত , তাদের CPU এর কনফিগারেশান । এগুলো জেনে ঠিক মত ভেবে তারপর Hosting নিবেন ।

আপনার সাইট এর Theme ঠিক ভাবে বাছাই করুনঃ

সাইট এর স্পীড অনেকাংশে থিম এর উপর নির্ভর করে । আলতু ফালতু থিম ব্যাবহার থেকে বিরত থাকুন । থিম নেয়ার আগে সেটার Rating কত , তারপর Support Forum এ গিয়ে দেখবেন সেটার সম্পর্কে কোন অভিযোগ আছে কিনা । থিম বাছাই এর সময় নিচের জিনিসগুলো মাথায় রাখবেনঃ

  • স্পীড যাতে ভালো থাকে ব্যাবহারের পর
  • থিম এ যাতে Built-in security enhancements থাকে
  • SEO Friendly যাতে হয়
  • ডিজাইন যাতে সুন্দর হয়

থিম আপডেট হয় কিনা অথর দ্বারা তা ও মাথায় রাখবেন ।

ইমেজ অপ্টিমাইজ করুনঃ

ছবির ব্যাপারে আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে । একটি সাইট স্লও করার পিছনে বড় সাইজ এর ছবির মূল ভূমিকা থাকে । ছবির ব্যাপারে নিচের জিনিসগুলো মেনে চলবেনঃ

সবসময় 8-bit PNG ছবি ব্যাবহার করবেন । যদি দেখেন ছবিটা অনেক কমপ্লেক্স তাহলে JPEG বা 24-bit PNG ব্যাবহার করবেন ।সবচেয়ে ছোট সাইজ হয় ছবির GIF format ব্যাবহার করলে ।

cruise side ad
কোন বড় ছবিকে ছোট আকারে ব্যাবহার করতে হলে HTML কোড দিয়ে ছোট করবেন না । এতে সাইজ টা ছোট দেখা যায় কিন্তু ফাইল সাইজ সেই বড়ই থাকে । তাই কোন ইমেজ এডিটর এ ইমেজটি নিয়ে সাইজ ছোট করে সেভ করুন । এতে ফাইল সাইজ ও ছোট হয়ে যাবে ।
WP Smush.it  এই প্লাগিনটি ব্যাবহার করতে পারেন । এটা Yahoo এর ইমেজ Optimizer ব্যাবহার করে আপনার সাইট এর ইমেজ এর ফাইল সাইজ কমিয়ে ফেলে ।

smush.it exampleআপনার সাইট এ কোন ইমেজ আপলোড করার আগে TinyPNG এই সাইট এ গিয়ে ইমেজ গুলো Compress করে নিন ।

আগে(File size: 57 KB)        পরে( File size: 16 KB )  

jQuery Image Lazy Load WP এই প্লাগিনটি ব্যাবহারের ফলে আপনার সাইট এ যখন কেউ ঢুকবে তখন শুধু প্রথম ইমেজ গুলো লোড হবে । যখন Scroll করে নিচে যাবে যখন বাকি ইমেজ গুলো লোড হবে । ফলে সাইট ফাস্ট হবে ।

Cache Plugin ব্যাবহার করুনঃ

Cache প্লাগিন ব্যাবহার করলে আপনার সাইট এর কমন জিনিস গুলো যেমনঃ হেডার, ফুটার , সাইডবার এগুলো বার বার লোড হয় না । অস্থায়ী ভাবে ব্রাউজার এগুলো সেভ করে রাখে । অনেক Cache প্লাগিন আছে । এদের মধ্যে ভালো হচ্ছে W3 Total Cache, WP Super Cache । এদের মধ্যে যেকোনো একটা ব্যাবহার করুন ।

w3 total cache page cachingContent Delivery Network (CDN) ব্যাবহার করুনঃ

CDN ব্যাবহারের ফলে আপনার সাইট এর স্পীড যেমন বাড়বে তেমনি সিকিউরিটি ও বৃদ্ধি পায় । পেইড CDN ব্যাবহারের চেষ্টা করবেন । ফ্রী CDN এর মধ্যে সব চেয়ে ভালো হচ্ছে Cloude Flare । এটা ২ জিবি ব্যান্ডউইথ আপনাকে ফ্রী দিবে প্রত্যেক মাসে ।

CloudFlare Logo

পৃথিবীর সব বড় বড় সাইট CDN ব্যাবহার করে । যেমন ফেসবুক ব্যাবহার করে তাদের নিজস্ব fbcdn.net ।

3rd Party Script:

বিভিন্ন সাইট থেকে আমরা অনেক সময় অনেক কিছু আমাদের সাইতে এ যুক্ত করার সময় আমাদেরকে একটি JavaScript দিয়ে বলে এগুলো Header এ ব্যাবহার করতে । কিন্তু এগুলো Header এ ব্যাবহার না করে আপনি Footer এ করবেন । তাহলে আপনার পুরো সাইট লোড হয়ার পর একদম শেষে গিয়ে এইসব স্ক্রিপ্ট লোড হবে । এতে সাইট স্লও হবে কম ।

pingbacks and trackbacks বন্ধ করুনঃ

এটা বন্ধ করতে settings>>Discussion এ যান এবং প্রথম ২ টি বক্স Uncheck করে দিন ।

এই ছিল আমার জানা মতে উপায়গুলো । আপনি যদি আরও উপায় জেনে থাকেন তাহলে মন্তব্বে বলুন ।

এখন আবার এখান থেকে আপনার সাইট এর স্পীড মাপুন । দেখুন কত টুকু বেড়েছে ।

 

লেখকঃ ফিদা আল হাসান

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

312,739 টি প্রশ্ন

402,306 টি উত্তর

123,565 টি মন্তব্য

173,274 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...