1,606 জন দেখেছেন
"যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (10 পয়েন্ট)

আমার কিছু প্রশ্ন ছিল??

যারা জানেজ তারা প্লিজ উত্তর দিবেন.....



১।আমি নামাজ পড়তে পারি না নাপাকের ভয়ে..জুমার নামাজও পড়তে পারিনা...


একবালতি পানিতে যদি শুধু একফোটা নাপাক পানি পড়ে তাহলে কি পুরা বালতি পানি কি নাপাক হয়ে যাবে.....


আর সারাক্ষন মাথায় শুধু খারাপ চিন্তা আসে...

আমি ইচ্ছে করে কোন খারাপ চিন্তা করি না...

যদি কোন খারাপ চিন্তা না করি এর পরেও হালকা বীর্য যাই তাহলে কি নাপাক হব

আমি কিন্তু কোন খারাপ চিন্তা করি নাই.... অনিচ্ছাকৃত ......


সারাক্ষন শুধু আজে বাজে জিনিস নিয়ে চিন্তা করি....কোন কাজ একবার করার পড়ে ও সেটা করিনাই বলে মনে হয়......????


আর সপ্নদোষ হওয়ার পর কি বিছানা ধুয়ে দিতে হবে..........???


আর স্পষ্ট আর অস্পষ্ট নাপাক বলতে কী বুঝায়?????




মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (21,398 পয়েন্ট)
আপনার মাঝে অবসেশন রোগ আছে বলে মনে হচ্ছে, আমার উত্তর টি দেখুন।
মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (10 পয়েন্ট)
হ্যা ভাইয়া যদি আপনি আমাকে এই অবসেসন রোগ থেকে আরোগ্য হওয়ার পথ দেখান।.. আল্লাহ আপনাকে রহমত করবে...
আমি আগে অনেক খারাপ ছিলাম...কিন্তু এখন ভাল হতে চাচ্ছি..
আমি সব ছেড়ে দিয়ে..আল্লাহর ইবাদাত বন্দেগী তে পড়ে থাকতে চাচ্ছি...
আমি চাচ্ছি পুর্ববর্তী সকল গোনাহ আল্লাহ্অর কাছে মাফ চাইব..
এবং নিয়মিত নামাজ পড়া শুরু করব...
আর আমি একজন আলেমের কাছে আমার সমস্যার কথা গুলো তুলে ধরব...!
আর আপনি অবসেসন রোগ থেকে মুক্তির উপায় জানালে উপকৃত হব...
আল্লাহ আপনাকে রহমত করুক..আমিন
মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (21,398 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
অবসেশন OCD চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এরপর
পুরো নাম, Obsessive compulsive disorder
টেনশন করবেননা এই রোগ ভাল হয়ে যায়।
তবে আপনার বর্ণনা অনুযায়ী বুঝা যাচ্ছে,
সমস্যা টি আপনার বেশি।
এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে যা যা করতে হবেঃ
1) একজন সাইকিয়াট্রিক বিশেষজ্ঞে ডাক্তারের  শরনাপন্ন হতে হবে।
2) রোগ টি একটি মানসিক রোগ।
3)ঔষধ গুলোর নাম যানি তবে ডাক্তারের
পরামর্শ ব্যতীত খাওয়া যায়না
4) এটি থেকে মুক্তি পেতে দীর্ঘ দিন ঔষধ সেবন
করতে হবে।
আপনি নিকটস্ত একজন সাইকিয়াট্রিক ডাক্তার দেখান।
যে কোন পরামর্শের জন্য আপনাকে সাহায্য করবো।

4 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (164 পয়েন্ট)

আপনার ১ ম প্রশ্ন পুরো পরিস্কার নয়

নাপাক হওয়ার ভয়ে বলতে আপনি

 কি বুজাতে চেয়েছেন

আপনার বারেবারে বীর্য বের হয়

 এই কারনে কি আপনি নামাজ পড়েন না

তাহলে আমি বলব আপনি নামাজ না পড়ে

 বহুত বড় গুনাহের কাজ করেছেন

 কারণ অতিরিক্ত বীর্যপাত হওয়ার বহুত কারণ থাকতে পারে

এই যেমন ধরেন.. অতিরিক্ত হস্তমৌতুন

 বা খুব বেশি খারাপ চিন্তা করা

সুতরাং আপনি নাপাক হওয়ার অজুহাতে 

নামাজ তরক করতে পারবেন 

না।

আপনি একজন ভাল হেমপ্যাথিক ডাক্টার দেখান।

 ইনশাআল্লাহ আপনি এই

রোগ থেকে মুক্তি পাবেন। 

আর আমি আশা করব আপনি নিয়মিত

 নামাজ আদায় করবেন। যে নামাজ ছেড়েছেন

 তার কাজা আদায় করবেন। 

২/ পুরো বালতির পানি নাপাক হয়ে যাবে। 

৩/ উত্তেজিত হোন বা না হোন বীর্য বাহির হলে

নাপাক হয়ে যাবেন। আপনার উপর গোছল করা ফরজ হয়ে যাবে।

৪/ আপনি নিয়মিত কোরআন তেলায়ত করুন।ইনশাআল্লাহ্‌

  আজেবজে চিন্তা দুর হবে। 

৫/ বিছানা ধৌত করতেকরতে হবে না। তবে

 বিছানার উপর যদি নামাজ পড়া হয় তবে

অবশ্যই ধৌত করতে হবে। 

৬/ স্পস্ট নাপাক বলতে বুজায় পায়খানা

 বা বীর্য অথাৎ যা দেখা যায়।  অস্পস্ট বলতে 

বুজায় যা খালি চোখে দেখা যায় না।

  যথা পেশাব শুকানোর পরে দেখা যায়না।

আশা করি আপনার প্রশ্নের উওর পেয়েছেন।

তথ্যসুএ ; হেদায়া ১'২

মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (10 পয়েন্ট)
আপনার উত্তর টা ভুল পেয়েছি
আমি বেহেশত জেওর পড়ে জানতে পেরেছি যে....
আমাদের দুই ধরনের বীর্য থাকে একটা মযী আর একটা মনী
মযী হচ্ছে সেটা যেটা জাওয়ানির জোশের সময় বের হয়..উত্তেজনা কমে না বরং বাড়ে...
সেটা বের হলে গোছল ফরয হয় না..
আর মযী বের হলে মানে গাড় বীর্য বের হলে তখন গোছল ফরয হবে.....
মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (164 পয়েন্ট)
আপনি আমার উওর ভাল করে পড়েন নি
তাই আপনি ভুল বুজেছেন আমি বলেছি,,
৩/ ৩/ উত্তেজিত হোন বা না হোন বীর্য বাহির হলে
নাপাক হয়ে যাবেন।
বেহেস্তি জেওরে ওটা ও তো লেখা আছে যে
মযী বাহির হলে ওই জায়গা টা ধৌত করতে হবে
কিন্তূ জোসের সময় মযী শরীর বা কাপড়ের কোন জায়গায়
লেগেছে ওইটা তো বুজা যায়না। তাই সন্দেহের কারনে তামাম আইম্মায়ে কেরাম বলেছেন
গোছল করা উওম।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (21,398 পয়েন্ট)
আপনার বর্ণনা অনুযায়ী আপনি Obsessive compulsive disorder বা অবসেসন রোগে আক্রান্ত
অবসেশন সমস্যা হলোঃ
√মাথায় আজবগুজি চিন্তা আসা।
√কোন কাজে সন্দেহ থাকা।
√একই কাজ বারবার করতে চাওয়া।
√খুতখুতে স্বভাব
এর জন্য একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের
পরামর্শ নিতে হবে। দীর্ঘমেয়াদী ঔষধ,খেতে হবে।
মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (10 পয়েন্ট)
হ্যা ভাইয়া আমি এই সমস্যায় ভুগতেছি
মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (21,398 পয়েন্ট)
হ্যাঁ আমি লক্ষন বুঝে আপনার রোগের নাম বলতে পেরেছি।
এটি সম্পুর্ন ভাল হয়ে যাবে।
এখন রাত হয়ে গেছে আমি কাল আপনাকে
বিস্তারিত বলবো।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (17 পয়েন্ট)
হা বালতির সবটুকু পানি নাপাক হয়ে যাবে,,প্রায় সবারই এরকম হয়,সেক্সুয়াল চিন্তা করে,,আর সেক্সুয়াল চিন্তা করার পর যদি পেনিস থেকে পাতলা তরল বের হয়,তাহলে শরীল নাপাক হয় না,,কাপরের যে জায়গাটুকু তে ভিজে যায়,সে স্থানটুকু ধুয়ে ফেললেই হবে,,আর যদি ঘাঢ় তরল মানে মনি বের হয়,তাহলে শরীর ও কাপর নাপাক হবে,,গোছল ফরজ,গোছল করে পবিএ হতে হবে,,বিছানার ঔই স্থানটুকু ধুলেই হবে,,
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (226 পয়েন্ট)
মাথায় খারাপ চিন্তা আসলেই সাথে সাথে অন্য কোনো ভালো চিন্তা করবেন।কোনো প্রকার ফিল্ম দেখবেন না।দিনে কিংবা রাতে যদি খারাপ চিন্তা না করেন তাহলে সপ্নদোষ না হওয়ার সম্ভাবনা বেশী।রাতে সপ্নদোষ হলো, সুধু আপনার পরনের কাপর নষ্ট হলো, কিন্ত বিছানায় লাগে নি, তাহলে বিছানা নাপাক না।কিন্ত বিছানায় লাগলে তা সম্পূর্ন নাপাক।তবে যদি সারাদিনে কমবেশী বীর্য আউট হতেই থাকে তাহলে, হোমিপ্যাথিক ডাক্তারের পরামর্শ নেন, আশা করি ভালো হবে।
closeWe

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি উত্তর
28 জুলাই "পবিত্রতা ও সালাত" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন SChoolWab (437 পয়েন্ট)
0 টি উত্তর

264,054 টি প্রশ্ন

345,038 টি উত্তর

101,474 টি মন্তব্য

138,867 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
closeWe
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...