বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
132,012 জন দেখেছেন
"ঈমান" বিভাগে করেছেন (2,125 পয়েন্ট)

3 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (2,125 পয়েন্ট)


জান্নাতীদের নেয়ামত বর্ণনা করতে গিয়ে আল্লাহ বলেনঃ

)وَلَكُمْ فِيهَا مَا تَشْتَهِي أَنفُسُكُمْ وَلَكُمْ فِيهَا مَا تَدَّعُونَ (

“সেখানে তোমাদের জন্য আছে যা তোমাদের মন চায় এবং সেখানে তোমাদের জন্য আছে, যা তোমরা দাবী কর।” (সূরা হা-মীম সিজদাহঃ ৩১-৩২) আল্লাহ আরো বলেনঃ

)وَفِيهَا مَا تَشْتَهِيهِ الْأَنفُسُ وَتَلَذُّ الْأَعْيُنُ وَأَنْتُمْ فِيهَا خَالِدُونَ(

“এবং তথায় রয়েছে মন যা চায় এবং নয়ন যাতে তৃপ্ত হয়। তোমরা সেখানে চিরকাল থাকবে।” (সূরা যুখরুফঃ ৭১)

ইহা জানা কথা যে, মন যা চায়, তার মধ্যে সর্বোত্তম হল বিবাহ করার মনোবাসনা। তা জান্নাতীদের জন্য অর্জিত হবে। চাই পুরুষ হোক কিংবা মহিলা হোক। মহিলাকে আল্লাহ তাআ’লা জান্নাতে তাঁকে তাঁর দুনিয়ার স্বামীর সাথে বিবাহ দিয়ে দিবেন। যেমন আল্লাহ তাআ’লা বলেনঃ

)رَبَّنَا وَأَدْخِلْهُمْ جَنَّاتِ عَدْنٍ الَّتِي وَعَدْتَهُم وَمَنْ صَلَحَ مِنْ آبَائِهِمْ وَأَزْوَاجِهِمْ وَذُرِّيَّاتِهِمْ إِنَّكَ أَنْتَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ(

“হে আমাদের পালনকর্তা! আর তাদেরকে প্রবেশ করাও চিরকাল বসবাসের জান্নাতে, যার ওয়াদা আপনি তাদেরকে দিয়েছেন এবং তাদের বাপ-দাদা, পতি-পত্নী ও সন্তানদের মধ্যে যারা সৎকর্ম করে তাদেরকে। নিশ্চয় আপনি পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়।” (সূরা গাফেরঃ ৮) আর দুনিয়াতে যদি অবিবাহিত থাকে তাহলে জান্নাতে তার নয় জুড়ানো কোন পুরুষের সাথে বিবাহের ব্যবস্থা করবেন।

বিষয়/প্রশ্নঃ (৫৮)
গ্রন্থের নামঃ ফাতাওয়া আরকানুল ইসলাম
বিভাগের নামঃ ঈমান
লেখকের নামঃ শাইখ মুহাম্মাদ বিন সালিহ আল-উসাইমীন (রহঃ)
অনুবাদ করেছেনঃ আবদুল্লাহ শাহেদ আল মাদানি - আবদুল্লাহ আল কাফী

0 টি পছন্দ
করেছেন (8,651 পয়েন্ট)

# নারীদের কে পুরুষ হুর এর কথা উল্লেখ করলে নারীরা নিজেই আল কুরআনে এই লেখা পড়ে লজ্জিত হতো কারন ভাল নারী মানেই লজ্জাশীল। 

# নারীরা যেহেতু একই স্থান, কাল ও পাত্রে একটি মাত্র সন্তান জন্ম দিতে পারে এবং পুরুষেরা যেহেতু একাধিক জন্ম দেয়ার ক্ষমতা রাখে সেহেতু পুরুষকেই সাধারণত বহুগামী হতে দেখা যায়।
আর নারীর প্রতি নরের যে আকর্ষণ, নরের প্রতি নারীর আকর্ষণ ঠিক তেমনটি নয়। যার কারনে আল্লাহ জান্নাতে নারীর কথা বলে পুরুষদের আগ্রহী করেছেন, কিন্তু নারীর ক্ষেত্রে নীরবতা পালন করেছেন।

# আল্লাহ স্ত্রীদের কথা উল্লেখ করেছেন স্বামীদের জন্য, কারন স্বামীরাই স্ত্রীদের প্রতি মোহিত এবং তার কামনাকারী। এজন্যই জান্নাতে নারীর কথা বলে পুরুষদের আগ্রহী করা হয়েছে কিন্তু নারীদের ব্যাপারে নীরব থাকা হয়েছে, এর মানে এই নয় যে নারীদের সঙ্গী থাকবে না বরং তাদেরও স্বামী থাকবে আদম সন্তানদের মধ্য থেকে তাদের অাকাঙ্খা ও প্রত্যাশা অনুযায়ী।

সবথেকে বড় কথা হচ্ছে যারা বেহেস্তবাসী হবেন নারী হোক কিনবা পুরুষ তারা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী সকল কিছু পাবেন যা খুশি তাই করতে পারবেন অার বেহেস্তে পাপ, নিষেধ, উচিৎ নয় বলে কোন শব্দ থাকবে না।

ধন্যবাদ।
মিলন আহাম্মেদ দীর্ঘ দিন যাবত তথ্য-প্রযুক্তি পেশায় নিয়োজিত। এছাড়াও সৌখিন সাংবাদিকতা, রাজনৈতিক বিশ্লেষন এবং সামাজিক সচেতনতামুলক কর্মকান্ডে জড়িত। যে কোন বিষয়ে অাগ্রহী আর প্রচন্ড ভ্রমন পিপাসু, দেশের বিভিন্ন স্থানসহ এপর্যন্ত ৬ টা দেশে ভ্রমনের অভিজ্ঞতা লাভ করেছেন। যে কোন বিষয় একটু ভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে চিন্তা করতে পছন্দ করেন।
0 টি পছন্দ
করেছেন (4,853 পয়েন্ট)

জান্নাতবাসী মহিলার জন্য তার দীনদার স্বামীকেই দেওয়া হবে এবং তাকে জান্নাতের হুরদের সরদার বানিয়ে দেওয়া হবে এবং দুনিয়ার কারো সঙ্গে বিবাহ হওয়ার পূর্বে যে মহিলার ইন্তেকাল হয় তাকে দুনিয়ার পুরুষদের মধ্য থেকে যেকোন একজনকে বেছে নেয়ার অধিকার দেওয়া হবে, যাকে সে পছন্দ করবে, তার সঙ্গেই সেখানে তার বিবাহ হবে। যদি সে কাউকে পছন্দ না করে তাহলে আল্লাহ তাআলা একজন পুরুষ সৃষ্টি করে উক্ত মহিলাকে তার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করে দিবেন। উল্লেখ্য, জান্নাতের মধ্যে সকলের সব ধরনের মনোবাসনা পূর্ণ করা হবে সত্য, কিন্তু স্বভাবগতভাবে যেহেতু মহিলাদের একাধিক স্বামী গ্রহণের কোনো বাসনা থাকে না; বরং এটাকে তারা দোষণীয় মনে করে এবং এটাকে নষ্ট চরিত্র বলে বিশ্বাস করে। সুতরাং তাদেরকে একাধিক স্বামী দিয়ে জান্নাতের মধ্যে আযাব দেওয়ার প্রশ্নই উঠে না।Ñ মাজমূআতুল ফাতাওয়া ৩/১৫, ফাতাওয়া মাহমূদিয়া ৩/৪৩১, নিজামুল ফাতাওয়া ১/৭৯, আপকে মাসাইল আওর উনকা হল ১/২৭৬, ফাতাওয়ায়ে রাহমানিয়া ১/১১০।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি উত্তর

330,135 টি প্রশ্ন

420,932 টি উত্তর

130,699 টি মন্তব্য

180,606 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...