147 জন দেখেছেন
"যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (346 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (346 পয়েন্ট)

সাধারনত গর্ভপাতের সাথে বান্ধত্ব্য কিংবা পরিবর্তী গর্ভধারনে জটিলতার কোন সম্পর্ক নেই। তবে কিছু গবেষনায় গর্ভপাত এবং পরবর্তীতে গর্ভধারনের সাথে নিচের বিষয়গুলোর সংযোগ পাওয়া গেছে:

  • গর্ভপাত, এমনকি সাধারন প্রসবের সময় যৌনাঙ্গের অধিক রক্তক্ষরন।
  • প্রি-ট্রিম প্রসব।
  • কম ওজনের বাচ্চার জন্ম।
  •  অমরা/গর্ভের ফুল আংশিক বা সম্পূর্ণ সার্ভিক্স (গর্ভশয়ের গলদেশ) ঢেকে ফেলে , যা প্রসবের পূর্বে কিংবা প্রসবকালীন মারাত্মক রক্তক্ষরণের কারন হতে পারে। 

 

মেডিক্যাল এব্রোশানের সময় নারী সেবনকারী ঔষধ, যেমন মিফ্রিষ্টোন (মিফিপ্রেক্স) গ্রহন করে প্রাথমিক অবস্থায় ভ্রন নষ্ট করার জন্য। আর সার্জিক্যাল এব্রোশানের সময় গর্ভাশয় থেকে ভ্রন বের করে আনার জন্য ভ্যাকুয়াম ডিভাইস, সিরিঞ্জ কিংবা চামচ আকারের পার্শ্ব ধারালো একপ্রকার যন্ত্র ব্যবহার করা হয়। বিরল ক্ষেত্রে সার্জিক্যাল অপারেশানের ফলে গর্ভাশয়ের মুখ অথবা গর্ভাশয়ের ব্যপক ক্ষতি স্বাধিত হতে পারে। অনভিজ্ঞ ডাক্তার এই অপারেশান পরিচালনা করলে এ ক্ষতির সম্ভাবনা অনেকংশে বেড়ে যেতে পারে। তবে বড় ধরনের কোন জটিলতা না হলে পুনরায় অপারেশানের মাধ্যমে সমস্যাটির সমাধান করলে কথিত নারী পুনরায় মা হতে পারবেন।

এব্রোশানের পর যদি আপনি আবার মা হতে চান তাহলে অবশ্যই আগে কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখিয়ে তার পর গর্ভধারনের বিষয়টি চিন্তা করা উচিৎ। এতে করে সুস্থ্য মা এবং তার গর্ভের বাচ্চার সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হওয়া যাবে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
10 সেপ্টেম্বর 2014 "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন যৌন ডাক্তার (226 পয়েন্ট)
1 উত্তর
0 টি উত্তর
24 অক্টোবর "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mahiraa (9 পয়েন্ট)

270,689 টি প্রশ্ন

353,784 টি উত্তর

104,921 টি মন্তব্য

143,530 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...