217 জন দেখেছেন
"আন্তর্জাতিক" বিভাগে করেছেন (6,242 পয়েন্ট)
বন্ধ

2 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,190 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

#1 সৌদি আরবে আজ শনিবার পৌরসভা নির্বাচনের অংশ নেওয়ার মাধ্যমে নারীরা এই প্রথম প্রার্থী ও ভোটার হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। তবে এখনো অনেক ক্ষেত্রেই সৌদি নারীরা বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছেন। দ্য ইনডিপেনডেন্ট-এর এক খবরে তা তুলে ধরা হয়েছে।



নারী ভোটাররা পিছিয়ে


১৮ বছরে ভোটার হওয়ার যোগ্যতা সাপেক্ষে এই প্রথম মাত্র এক লাখ ৩০ হাজার সৌদি নারী ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছেন। পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ১৩ লাখ ৫০ হাজার। এএফপির তথ্যমতে, সৌদি আরবের জনসংখ্যা প্রায় দুই কোটি ১০ লাখ। 

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পেলেও পুরুষদের মতো নারীরা সরাসরি উপস্থিত থেকে নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারেননি। পর্দার আড়ালে থেকে বা প্রতিনিধিদের মাধ্যমে পুরুষদের কাছে তাঁদের প্রচার চালাতে হয়েছে। এমনকি নিজের ছবিযুক্ত কোনো পোস্টারও লাগাতে পারেননি কোনো নারী প্রার্থী। 

স্থানীয় কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, নির্বাচন প্রক্রিয়া ও এর তাৎপর্য নিয়ে সচেতনতার অভাবে অনেক নারী ভোটার হননি।


পর্দা ছাড়া বাইরে পা দেওয়া বারণ

সৌদি নারীকে কঠোর পর্দার মধ্যে চলতে হয়। কেবল চোখ ও হাত ছাড়া আপাদমস্তক ঢেকে রাখতে হয়। ধর্মীয় পুলিশ তা বিষয়টি নজরদারি করে। চোখ ও হাত ছাড়া নারীর অন্য কোনো অংশ দেখা গেলে ওই পুলিশ তাদের শাস্তি দেয়।


ভিন পুরুষের সঙ্গে দেখা নয়

পরিবারের বাইরে অন্য কোনো পুরুষের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি নেই সৌদি নারীদের। অবশ্যই পরিবারের কোনো পুরুষ অভিভাবকের সঙ্গে বের হতে হয়। সৌদি আরবের বেশির ভাগ বাড়িতেই নারী ও পুরুষদের জন্য রয়েছে আলাদা প্রবেশ পথ। শুধু বাড়িতেই নয়, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি কর্মস্থলেও রয়েছে আলাদা ব্যবস্থা।


গাড়ি চালাবে না নারী

সৌদি আরবের নারীদের এখনো গাড়ি চালানোর অনুমতি মেলেনি। নারীর গাড়ি চালানোকে সে দেশে ‘হারাম’ বা ‘নিষিদ্ধ’ বলে মনে করা হয়। নারীদের পর্দা প্রথা রক্ষা করার জন্য এটি করা হয়। নারীরা গাড়ি চালালে তাঁরা বাইরের পুরুষের সঙ্গে মেলামেশার সুযোগ পেয়ে যাবেন। গত শতকের নব্বইয়ের দশক থেকে নারীদের গাড়ি চালানোর অধিকারের দাবিতে একটি সংগঠন সচেতনতামূলক প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এই আইনের বিরোধিতা করে অনেক নারী অধিকার কর্মী বিক্ষোভ করেছেন। তবে কাজ হয়নি।


ব্যাংক হিসাব খুলতে অনুমতি

পরিবারের পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া নারীরা বাইরে যেতে পারেন না, ব্যবসা করতে পারেন না, এমনকি চিকিৎসাও করাতে পারেন না। যদি চাকরি বা ব্যবসার অনুমতি মিলেও যায় সেখানে তাঁদের পড়তে হয় দুর্ভোগে। ব্যাংক হিসাব খুলতেও লাগে পুরুষ অভিভাবকের সহায়তা।

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (8,638 পয়েন্ট)

সৌদি অারবের অাইনে মেয়েদের যে ৭টি কাজ করা নিষেধঃ
১. নারীরা গাড়ি চালানোর লাইসেন্স পাবে না।
২. তারা একা কোথাও যেতে পারবে না।
৩. নারীরা খেলায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না।
৪. পুরুষের সাথে খুব কম কথা বলতে হবে।
৫. মেয়েরা জিমে যেতে পারবে না।
৬. ভ্যালেন্টাইন’স ডেতে মেয়েরা লাল পোশাক পরিধান করতে পারবে না।
৭. নারীরা ঘরের বাহিরে কোন কাজ করতে পারবেন না।


মিলন আহাম্মেদ দীর্ঘ দিন যাবত তথ্য-প্রযুক্তি পেশায় নিয়োজিত। এছাড়াও সৌখিন সাংবাদিকতা, রাজনৈতিক বিশ্লেষন এবং সামাজিক সচেতনতামুলক কর্মকান্ডে জড়িত। যে কোন বিষয়ে অাগ্রহী আর প্রচন্ড ভ্রমন পিপাসু, দেশের বিভিন্ন স্থানসহ এপর্যন্ত ৬ টা দেশে ভ্রমনের অভিজ্ঞতা লাভ করেছেন। যে কোন বিষয় একটু ভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে চিন্তা করতে পছন্দ করেন।
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

288,298 টি প্রশ্ন

373,618 টি উত্তর

113,002 টি মন্তব্য

156,876 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...