770 জন দেখেছেন
"সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (4,261 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (4,261 পয়েন্ট)

টেষ্ট টিউব বেবি বলা হলেও চিকিৎসক বা চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা কিন্তু একে ”ইন ভিন্টরো ফার্টিলাইজেশন বলে থাকেন” সংক্ষেপে একে ”আই ভি এফ ” বলা হয় । ইন ভিন্টরো শব্দটি লাতিন থেকে নেয়া হয়েছে । মূল অর্থ হলো কাচের মধ্যে । আগেকার দিনে জীবিত কোনো প্রাণীর কোষকলা দেহের বাইরে উৎপাদন করার জন্য বিকার- টেস্ট টিউবের মতো কাচের তৈরি পাত্র ব্যবহার করা হতো । তবে আজকের দিনে ”ইন ভিন্টরো” শব্দটি আরো ব্যাপক ভাবে প্রয়োগ করা হয়ে থাকে । দেহের বাইরে সম্পাদিত যে কোনো জৈব প্রক্রিয়াকেই ”ইন ভিন্টরো” হিসেবে চিহ্নিত করা হয় । নানা কারণে অনেক দম্পতিই সন্তান ধারণ করতে পারেন না । যে সব নারী ”ফেলোপিয়ান টিউবে” কোনো ধরণের সমস্যার কারণে সন্তান ধারণ করতে পারেন না তাদের চিকিৎসা করার জন্য অর্থাৎ তাদেরকে সন্তান ধারণে সক্ষম করে তোলার জন্য ইন ভিন্টরো ফার্টিলাইজেশনের শুরু হয়েছিলো । পরে দেখা গেলো শুধু ফেলোপিয়ান সংকট নয় আরো কিছু সংকটের সমাধান করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে ।টেস্ট টিউব বেবির প্রযুক্তি খুব বেশি দিনের পুরনো নয় । এ নিয়ে দীর্ঘ গবেষণা চললেও এই প্রযুক্তিতে প্রথম সাফল্য এসেছিলো গ্রেট বৃটেনে ১৯৭৮ সালের ২৫ই জুলাই মাসে। পৃথিবীর প্রথম টেষ্ট টিউব বেবির নাম হলো ”লুইস জয় ব্রাউন ” । কোনো নারীর ফেলোপিয়ান টিউবে কোনো প্রতিবন্ধকতা থাকলে তার পক্ষে মা হওয়া এককালে অসম্ভব ছিলো । কিন্তু লুইস জয় ব্রাউনের জন্মের মধ্য দিয়ে সে বাঁধা দূর হলো, ফেলোপিয়ান টিউবের সমস্যাকে চিকিৎসকরা আর গর্ভ ধারণের ক্ষেত্রে বাঁধা বলে সাধারণ ভাবে মনে করেন না । ফেলোপিয়ান টিউবের সমস্যায় যে সব নারী ভুগছেন, তাদের জন্য এটা নি:সন্দেহে সুখবর। পৃথিবীর প্রথম টেস্ট টিউব বেবির সন্তান কিন্তু স্বাভাবিক ভাবে জন্ম গ্রহণ করেছিলো । নারীর ডিম্বের সাথে পুরুষের শুক্রাণুর মিলনের সফল মিলনের মাধ্যমে গর্ভে সঞ্চার হয় । এ কথা কম-বেশি সবাই আমরা জানি। কিন্তু আমরা অনেকেই যা জানি না তা হলো যে ডিম্ব-শুক্রাণুর সফল মিলনের পরও সন্তান জন্ম লাভ নাও করতে পারে । প্রাকৃতিক নানা কারণে এ ক্ষেত্রে সফলতার হার মাত্র ৩১ শতাংশ । অর্থাৎ ১০০টি ফার্টিলাইজেশন বা ডিম্ব-শুক্রাণু মিলন ঘটলেও মাত্র ৩১টি সন্তান জন্ম নেয়। টেষ্ট টিউব বেবির সাফল্যর হার প্রায় অনুরুপ ।

যে সব মা ডিম্ব উৎপাদন করতে পারছে না, প্রথমে তাদের ডিম্ব উৎপাদন করতে সাহায্য করে এমন ওষুধ অর্থাৎ কিছু হরমোন প্রয়োগ করা হয় । এ ভাবে মাতৃদেহে হরমোন প্রয়োগের মাধ্যমে যে ডিম্বটি তৈরি হলো তা স্বাভাবিক ভাবে ছেড়ে দেয়া হয় না । অর্থাৎ প্রাকৃতিক ভাবে গর্ভ ধারণের জন্য তাকে ছেড়ে দেয়া হয় না । বরং বিশেষ প্রক্রিয়ায় ডিম্বটি চিকিৎসকরা মাতৃদেহের বাইরে বের করে নিয়ে আসেন । এরপর তাকে ফার্টিলাইজ করার জন্য শুক্রাণুর সাথে মেশানো হয় । এভাবে ফার্টিলাইজ হয়ে যাওয়ার পর ডিম্বটি মায়ের জরায়ুতে আবার প্রতিস্থাপন করা হয় । তবে ডিম্বটি পুনরায় প্রতিস্থাপনের আগে মাকে নানা হরমোন দিয়ে তৈরি করে নেয়া হয়ে থাকে। প্রতিস্থাপনের পর সন্তান ঠিক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে কিনা তা নিয়মিত পরীক্ষা করে দেখা হয় । খুব সংক্ষেপে এই হল টেস্ট টিউব বেবির জন্মকথা । ১৯৭৮ সালে থেকে এই প্রযুক্তির বিজয় অভিযান শুরু হয় । এর মধ্যে অনেক সময় গড়িয়েছে । উন্নতি ঘটেছে এই প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও ।নানা কারণে অনেক পুরুষ পর্যাপ্ত শুক্রাণু তৈরি করতে পারেন না । এ কারণে অনেকেই পিতা হওয়ার সৌভাগ্য থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়েন । কিন্তু এবার তাদের সহায়তায় চিকিৎসা বিজ্ঞান এগিয়ে এসেছে । চিকিৎসকরা সরাসরি এ জাতীয় পুরুষদের শুক্রাণু সংগ্রহ করেন এবং পরে তা মাতৃদেহ থেকে বের করে আনা ডিম্বতে সরাসরি প্রবিষ্ট করিয়ে ফার্টিলাইজেশনে পর্বটি সাফল্যের সাথে সম্পন্ন করেন । এর পর এই ডিম্বটি পুনরায় মাতৃগর্ভে প্রতিস্থাপন করা হয় ।

এ ভাবে সন্তান ধারণের ব্যবস্থা করতে যেয়ে সাধারণ ভাবে কিছু জটিলতা দেখা দিতে পারে । এর মধ্যে সবচেয়ে বড় যে সমস্যা দেখা দেয় তা হলো, অনেক সময় ইন ভিন্টরো ফার্টিলাইজেশনের ফলে একাধিক সন্তানের জন্ম নেয় । এ ছাড়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে মায়ের জরায়ুতে ”সিস্ট” হতে পারে। এ ছাড়া স্বাভাবিক গর্ভ ধারণের ক্ষেত্রে সাফল্য যেমন ৩১ শতাংশ । ইন ভিন্টরো ফার্টিলাইজেশনের ক্ষেত্রেও সফলতার হার তার কাছাকাছি অর্থাৎ ২৮ থেকে ৩০ শতাংশ  ।

 

closeWe

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
14 মে "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন সামা (9 পয়েন্ট)

252,263 টি প্রশ্ন

328,234 টি উত্তর

94,075 টি মন্তব্য

130,774 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
closeWe
  1. জামিয়ার রাহমান M

    1386 পয়েন্টস

  2. Md. Faridur Reza

    1089 পয়েন্টস

  3. মোঃ হীরা খান

    1010 পয়েন্টস

  4. রঞ্জন কুমার

    983 পয়েন্টস

  5. allahorgolam

    976 পয়েন্টস

* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...