বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
75 জন দেখেছেন
"ইবাদত" বিভাগে করেছেন (17 পয়েন্ট)
রাতে সহবাসের পর গোসল ছাড়া দোয়া, সুরা ইত্যাদি মুখস্ত আমল করা যাবে কি?

2 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (2,168 পয়েন্ট)
যার ওপর গোসল ফরয তার জন্য কোরআন পাঠ করা নিষেধ। কেননা, রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,

لَا تَقْرَأِ الحَائِضُ وَلَا الجُنُبُ مِنَ القُرْآنِ شَيْئًا

ঋতুবতী নারী ও জুনুব ব্যক্তি (যার ওপর গোসল ফরয) কোরআনের কিছুই পাঠ করবে না। (তিরমিযি ১৩১, ইবনু মাজাহ ৫৯৫)

তবে গোসল ফরয অবস্থায় মনে মনে কোরআন পাঠ নিষেধ নয়। কেননা, মনে মনে কোরআন পাঠ করাকে পরিভাষায় ‘তেলাওয়াত বা কেরাত‘ বলা হয় না; বরং পরিভাষায়  একে ‘জিকর ও ফিকর’ বলা হয়।  যেমন, ইমাম কাসানি রহ. বলেন,  القراءة لا تكون إلا بتحريك اللسان بالحروف যবান হরফসহ নড়াচড়া ছাড়া কেরাত হয় না। (বাদায়ে’ ৪/১১৮)
+1 টি পছন্দ
করেছেন (10,657 পয়েন্ট)
যার ওপর গোসল ফরজ তার জন্য কোরআন কারিম স্পর্শ করা জায়েয নেই। তবে স্পর্শ ছাড়া জায়েয আছে কি?

পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন হলো মহান আল্লাহর বাণী। যা সর্বোচ্চ পবিত্র ও মর্যাদাসম্পন্ন। তাই এ পবিত্রতা ও মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে কোরআন স্পর্শ করার জন্য ও তা পাঠ করার জন্য দৈহিক পবিত্রতার শর্তারোপ করা হয়েছে। যে মুসলমান কোরআন স্পর্শ করতে ও তা পাঠ করতে ইচ্ছুক তাকে অবশ্যই দৈহিকভাবে পবিত্র হতে হবে।

কোরআনে কারিম স্পর্শ করা প্রসঙ্গে পবিত্র কোরআনের সূরা ওয়াকিয়ার ৭৯ নাম্বার আয়াতে ইরশাদ হয়েছে, একে স্পর্শ করবে না তবে যারা পবিত্র শুধু তারাই।

কোরআন পাঠ প্রসঙ্গে মহানবী হজরত রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ইরশাদ করেছেন, ঋতুবতী নারী ও জুনুব ব্যক্তি (যার ওপর গোসল ফরজ) কোরআনের কিছুই পাঠ করবে না। (সুনানে তিরমিজি: ১৩১)

বিধানগতভাবে সুস্পষ্ট ভাষার এ হাদিসের একজন বর্ণনাকারী হলেন ইসমাইল ইবনে আইয়্যাশ। তার স্মৃতিশক্তির বিষয়ে হাদিসবেত্তাদের কিছুটা আপত্তি অনেক বিজ্ঞ মুহাদ্দিস তাকে গ্রহণযোগ্য ও নির্ভরযোগ্য বর্ণনাকারী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। তার বিষয়ে কতিপয় আপত্তিকারকের আপত্তি মেনে নিলেও তার বর্ণিত এ হাদিসের বক্তব্য ও বিধান অবশ্যই গ্রহণযোগ্য।

কেননা, এ বক্তব্যের সমর্থনে সহিহ হাদিস আছে। হজরত আলী (রাঃ) বর্ণনা করেন, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জুনুব না হলে (গোসল ফরজ না হলে) যে কোনো অবস্থায় আমাদের কোরআন শোনাতেন। এ হাদিসের গ্রহযোগ্যতা সম্পর্কে মন্তব্য করতে যেয়ে ইমাম তিরমিজি (রহঃ) বলেছেন, এ হাদিসটি হাসান সহিহ।

হজরত আলী (রাঃ) আরও বর্ণনা করেন, একদা আমি আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে দেখলাম, তিনি অজু করে কোরআন পাঠ করলেন। তিনি বললেন, এভাবে কোরআন পাঠ করবে সে ব্যক্তি; যার ওপর গোসল ফরজ নয়। কিন্তু যার ওপর গোসল ফরজ সে কোরআন পাঠ করবে না।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে রাওয়াহা (রাঃ) বলেন, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জুনুব অবস্থায় (গোসল ফরজ অবস্থায়) কোরআন তেলাওয়াত করতে আমাদেরকে নিষেধ করেছেন।

ইমাম দার কুতনি এ হাদিস উল্লেখ করার পর মন্তব্য করেছেন এর বর্ণনাধারা গ্রহণযোগ্য।

ইমাম তিরমিজি তার সুনানে ১৩১ ও ১৪৬ নাম্বার হাদিসের পরে মন্তব্য করেছেন অধিকাংশ জ্ঞানী সাহাবা ও তাবিয়িন অপবিত্র অবস্থায় কোরআন তেলাওয়াতকে নিষিদ্ধ মনে করতেন।

সুফিয়ান সাওরি, ইবনুল মোবারক, শাফি ও আহমাদসহ পরবর্তী সময়ের ইসলামি স্কলাররাও মনে করতে ঋতুবতী নারী ও জুনুব ব্যক্তির জন্য কোরআন তেলাওয়াত করা জায়েয নেই।

এ প্রসঙ্গে বিভিন্ন মাজহাবের মত উল্লেখ করতে যেয়ে জগদ্বিখ্যাত গ্রন্থ আলফিকহু আলা মাজাহিবিল আরবাআতে উল্লেখ করা হয়েছে, হানাফি ফেকাহবিদদের মতে, যার ওপর গোসল ফরজ তার জন্য কোরআন পাঠ করা হারাম। তা পরিমাণে সামান্যই হোক অথবা বেশি। তবে দুই অবস্থায় কোরআনের আয়াত পাঠ করা যায়। কোনো বিশেষ কাজ শুরুর আগে বিসমিল্লাহ পূর্ণ পাঠ করতে পারবে। যদিও তা কোরআনেরই আয়াত। দোয়া করার জন্য অথবা কারও প্রশংসা করার জন্যে কোরআনের ছোট কোনো বাক্যাংশ পাঠ করা যাবে।

শাফিয়ি ফেকাহবিদদের মতে, যার ওপর গোসল ফরজ তার জন্য কোরআন তেলাওয়াতের ইচ্ছায় কোরআনের একটি শব্দও পাঠ করা হারাম।

তবে এর দ্বারা শুধু জিকির উদ্দেশ্য হলে, অথবা অনিচ্ছায় মুখ থেকে উচ্চারিত হলে তা হারাম হবে না। যেমন, কোনো কাজের আগে বিসমিল্লাহ পূর্ণ বলা যাবে। গাড়িতে উঠে সুবহানাল্লাজি... শেষ পর্যন্ত বলা যাবে।

হাম্বলি ফেকাহবিদদের মতে, যার ওপর গোসল ফরজ তার জন্য অতি ছোট আয়াত অথবা বড় আয়াতের অনুরূপ ছোট অংশ পাঠ করা জায়েয। এর চেয়ে বেশি হলে তা জায়েয হবে না। তবে কোরআনের যে সব আয়াত জিকিরের আয়াত হিসেবে প্রসিদ্ধ ও স্বীকৃত সেগুলো- সংশ্লিষ্ট কাজের সময় পাঠ করা যাবে।

সার কথা হলো- নারীর মাসিক ঋতুস্রাব হলে, সন্তান প্রসব পরবর্তী স্রাব হলে এবং নর-নারী যৌনমিলন করলে অথবা বীর্যপাত হলে পবিত্রতা লাভের পূর্বে কোরআন স্পর্শ করা যাবে না ও পাঠ করা যাবে না। তবে যে কোনো জিকির করা যাবে, তাসবিহ পাঠ করা যাবে এবং দোয়া- ইস্তেগফার করা যাবে।
সাবির ইসলাম অত্যন্ত ধর্মীয় জ্ঞান পিপাসু এক জ্ঞানান্বেষী। জ্ঞান অন্বেষণ চেতনায় জাগ্রতময়। আপন জ্ঞানকে আরো সমুন্নত করার ইচ্ছা নিয়েই তথ্য প্রযুক্তির জগতে যুক্ত হয়েছেন নিজে জানতে এবং অন্যকে জানাতে। লক্ষ কোটি মানুষের নীরব আলাপনের তীর্থ ক্ষেত্রে যুক্ত আছেন একজন সমন্বয়ক হিসেবে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
29 মার্চ "হাদিস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Oscar mahmud (12 পয়েন্ট)
1 উত্তর

360,045 টি প্রশ্ন

455,235 টি উত্তর

142,540 টি মন্তব্য

190,344 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...