বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
117 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (20 পয়েন্ট)

3 উত্তর

+6 টি পছন্দ
করেছেন (4,762 পয়েন্ট)

এখানে পূর্বের উভয়ের উত্তরের সাথেই আমার দ্বিমত রয়েছে। 

এ প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার আগে আমাদের "তুলনা" শব্দের মানে জানতে হবে। তুলনা শব্দের অর্থ হলো একই জাতীয় দুই বা ততোধিক ব্যাক্তি বা বস্তুর মাঝে সাদৃশ্য/বৈসাদৃশ্য/উৎকর্ষ বিচার করা। 

এক্ষেত্রে কোরআন কোন মাখলুক(সৃষ্টি) নয়। কোরআন হলো আল্লাহর বাণী। আর আমরা হলাম মাখলুক বা আল্লাহর সৃষ্টি।

যেহেতু দুটি বিষয় সম্পূর্ণ আলাদা, তাই এদের মাঝে তুলনা করার চেষ্টা করে অযথা ফিতনা সৃষ্টি করা ঠিক নয়। দুটোই নিজ নিজ ক্ষেত্রে সর্বোত্তম।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন। 

+5 টি পছন্দ
করেছেন (360 পয়েন্ট)
এই প্রশ্নের উত্তর দুই রকম হয়ে যায়.যেমন একদিকে কোরআন বড়.আবার অন্যদিকে মানুষ বড়.কারণ মানুষের উপরই তো কোরআন নাজিল হয়.এ দিক থেকে মানুষ বড়.আবার কোরআন মানুষসহ সকল প্রাণীর সব সমস্যার সমাধান দেওয়া আছে.সবদিক থেকে বিবেচনা করেও বলা যায় কোরআন বড়.
+3 টি পছন্দ
করেছেন (3,019 পয়েন্ট)

'মানুষ বড় ' কারণ পৃথিবীতে আল্লাহর বাণী কোরান পাঠানো হয়েছে মূলত মানুষের কল্যাণের উদ্দেশ্যে৷কোরানের জন্য মানুষকে নয়৷ 

এ পৃথিবীতে যা কিছু সৃষ্টি করা হয়েছে, তার সবই মানুষের কল্যাণের জন্য। মহান আল্লাহ আপন কৃপায় সেসব সৃষ্টিজীবকে মানুষের অনুগত ও বশ্য করে দিয়েছেন। যদিও তারা আকার-আকৃতিতে, শক্তি ও দেহাবয়বের দিক থেকে মানুষের চেয়ে অনেক বড়। এ মর্মে তিনি ইরশাদ করেন: ‘‘তুমি কি লক্ষ্য কর না যে, আল্লাহ তোমাদের কল্যাণে নিয়োজিত করেছেন পৃথিবীতে যা কিছু আছে তৎসমূদয়কে।’’ 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
15 ডিসেম্বর 2018 "ইসলাম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Rahat666 (11 পয়েন্ট)

330,134 টি প্রশ্ন

420,932 টি উত্তর

130,699 টি মন্তব্য

180,606 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...