বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
39 জন দেখেছেন
"নবী-রাসূল" বিভাগে করেছেন (518 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (280 পয়েন্ট)
ইব্রাহিম আঃ জীবনির উপর বাজারে ভালো বই পাওয়া যায়।৷ এত বড় জীবনি অল্প সময়েে বলা সম্ভব না।          
করেছেন (914 পয়েন্ট)
কথাটি মন্তব্যে রুপান্তরিত করুন।
0 টি পছন্দ
করেছেন (813 পয়েন্ট)
হযরত ইব্রাহীম (আঃ) তাহার- 

(আনুমানিক জন্ম: ১৯০০ খৃষ্ট পূর্বাব্দ থেকে ১৮৬১ খৃষ্ট পূর্বাব্দে জন্ম – মৃত্যু: ১৮১৪ খৃষ্ট পূর্বাব্দ থেকে ১৭১৬ খৃষ্ট পূর্বাব্দ), ইসলাম ধর্মের একজন গুরুত্বপূর্ণ নবী ও রাসূল।পবিত্র কুরআনে তাঁর নামে একটি সূরাও রয়েছে। পুরো কুরআনে অনেকবার তাঁর নাম উল্লেখিত হয়েছে। ইসলাম ধর্মমতে, তিনি মুসলিম জাতির পিতা। ইসলাম ছাড়াও, ইহুদি ও খ্রিস্টধর্মেও ইব্রাহিম শ্রদ্ধাস্পদ ব্যক্তিত্ব হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন। এজন্য ইবরাহিমকে সেমেটিক ধর্মগুলোর জনকও বলা হয়ে থাকে। কা'বুল আহবার-এর মতে তিনি ১৯৫ বছর জীবিত ছিলেন। সৃষ্টিকর্তার প্রতি তার দৃঢ় বিশ্বাসের এর ফলে আল্লাহ তাকে খলিলুল্লাহ বলে ডাকতেন।ইসলামে তার কার্যক্রম কে স্মরণ করে ঈদুল আযহা পালিত হয়। ইব্রাহিম ও তার শিশুপুত্র ইসমাইল ইসলামে কুরবানিও হজ্জের বিধান চালু করেন যা বর্তমানের মুসলিমদের দ্বারাও পালিত হয়।

তাঁর পিতার নাম আযর। তাঁর স্ত্রীর নাম সারাহ ও হাজেরা। তাঁর চার পুত্র ছিলেন: ইসমাইল, ইসহাক। মতান্তরে, তাঁর ৬-১২জন পুত্র ছিলেন। তবে, পুত্র হিসেবে কেবল ইসমাইল ও ইসহাকের বর্ণনাটিই ইতিহাসে প্রসিদ্ধ। অন্যদের ব্যাপারে ঐতিহাসিক উল্লেখের তেমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায় না।

ইসলাম ধর্মমতে, ইব্রাহিমের [আ.] উপর সহীফাঅবতীর্ণ হয়েছে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
19 জুন 2015 "নবী-রাসূল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Abdul Mozid (13 পয়েন্ট)

313,056 টি প্রশ্ন

402,688 টি উত্তর

123,718 টি মন্তব্য

173,412 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...