বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
62 জন দেখেছেন
"ইসলাম" বিভাগে করেছেন (2,010 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
 আল্লাহ কি আমার কথা শুনেন, আমাকে দেখেন? আমি কিভাবে চরিত্রবান হবো? আমি জীবনের আশা ছেড়ে 
দিছি। আমার কেও নেই। আল্লাহ কে ডাকলে কি আল্লাহ আমার দুঃখ দুর করে দিবেন?   
করেছেন (2,291 পয়েন্ট)
৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ুন, রোজা রাখুন। বেশি বেশি আল্লাহর কাছে দোয়া করুন।

2 উত্তর

+2 টি পছন্দ
করেছেন (10,638 পয়েন্ট)
আল্লাহকে ডাকলে আল্লাহ আপনার দুঃখ দূর করে দিবেন। তবে আল্লাহকে ডাকতে হবে তার আনুগত্যে একনিষ্ঠ হয়ে।

আল্লাহ বলেনঃ আর তোমাদের রব বলেছেন, তোমরা আমাকে ডাক, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দেব। নিশ্চয় যারা অহংকারবশে আমার ইবাদাত থেকে বিমুখ থাকে, তারা অচিরেই জাহান্নামে প্রবেশ করবে লাঞ্ছিত হয়ে। (মুমিন বা গাফিরঃ ৬০)

দোআর শাব্দিক অর্থ ডাকা, অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিশেষ কোন প্রয়োজনে ডাকার অর্থে ব্যবহৃত হয়। কখনও যিকরকেও দোআ বলা হয়।

দোআ দুই প্রকারঃ ১। প্রার্থনা বা কিছু পেতে দোআ করা।

২। ইবাদাতের মাধ্যমে দোআ করা। চাওয়া বা প্রার্থনার দোআ হল আল্লাহর কাছে দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ চাওয়া। এতে চাওয়া আছে, যাচঞা আছে। পক্ষান্তরে ইবাদাতের দোআর মধ্যে চাওয়া নেই। শুধু নৈকট্য লাভের জন্য যা যা করা হয় তাই এ প্রকারের ইবাদত। নৈকট্য লাভের সকল প্রকাশ্য-অপ্ৰকাশ্য কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে; কেননা যে আল্লাহর ইবাদাত করে, সে স্বীয় কথা ও অবস্থার ভাষায় তার রবের কাছে উক্ত ইবাদাত কবুল করার এবং এর উপর সাওয়াব দেয়ার আবেদন করে থাকে। পবিত্র কুরআনে দোআর যত নির্দেশ এসেছে, আর আল্লাহ ছাড়া অন্যের কাছে দোআ করা থেকে যত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে এবং দোআকারীদের যত প্রশংসা করা হয়েছে, সে সবই প্রার্থনার দোআ ও ইবাদাতের দোআকে শামিল করে থাকে। যেমন, আল্লাহ বলেন,

সুতরাং আল্লাহকে ডাক তার আনুগত্যে একনিষ্ঠ হয়ে। (সূরা মুমিন বা গাফিরঃ ১৪)

আল্লাহ সবার কথা শুনেন, এবং দেখেন। আর চরিত্রবান হতে হলে ইসলামে পরিপুর্ণভাবে প্রবেশ করতে হবে।
সাবির ইসলাম অত্যন্ত ধর্মীয় জ্ঞান পিপাসু এক জ্ঞানান্বেষী। জ্ঞান অন্বেষণ চেতনায় জাগ্রতময়। আপন জ্ঞানকে আরো সমুন্নত করার ইচ্ছা নিয়েই তথ্য প্রযুক্তির জগতে যুক্ত হয়েছেন নিজে জানতে এবং অন্যকে জানাতে। লক্ষ কোটি মানুষের নীরব আলাপনের তীর্থ ক্ষেত্রে যুক্ত আছেন একজন সমন্বয়ক হিসেবে।
0 টি পছন্দ
করেছেন (568 পয়েন্ট)
হ্যাঁ মহান আল্লাহ তায়ালা আপনার দুঃখ দুর করে দিবেন।তবে একটা শর্ত আছে শর্তটি হলো আপনার মহান আল্লাহ তায়ালার কাজ করতে হবে।অর্থ্যাৎ আপনাকে নামাজ-কালাম পড়তে হবে।মহান আল্লাহ তায়ালার নিষেধ মোতাবেক চলতে হবে।আমাদেল বিশ্ব নবি হযরত মুহাম্মদ (স.) এর চরিত্র অনুসরণ করতে হবে।তাহলে মহান আল্লাহ্ তায়ালা আপনাকে সাহায্য করবেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

4 টি উত্তর

358,873 টি প্রশ্ন

453,951 টি উত্তর

142,179 টি মন্তব্য

189,994 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...