বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
86 জন দেখেছেন
"ইসলাম" বিভাগে করেছেন (4,430 পয়েন্ট)
পূনঃরায় খোলা করেছেন

1 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (7,631 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

সাধারণ সংজ্ঞা অনুযায়ী মাকরুহ এমন কাজ যা পালন করার তুলনায় না করা উত্তম। অর্থাৎ যে কাজ করা যাবে কিন্তু না করা উত্তম।

উদাহরণঃ ইশার পূর্বে নিদ্রা যাওয়া এবং ইশার পর গল্প-সল্প করা মাকরুহ।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইশার পূর্বে ঘুমানো এবং এর পরে কথা বলা অপছন্দ করতেন।

(সূনান তিরমিজী, হাদিস নম্বরঃ ১৬৮ ইবনু মাজাহ ৭০১ হাদিসের মানঃ সহিহ)।

মুস্তাহাব এমন আমল যা পালন না করলে কোনো শাস্তি পেতে হবে না। কিন্তু পালন করা ইসলামের দৃষ্টিতে উত্তম। মুস্তাহাব কাজ করলে সওয়াব ও আল্লাহর দরবারে পুরস্কার আছে। যার ব্যাপারে শরীয়ত উৎসাহ দান করেছে।

উদাহরণঃ প্রতি আরবি মাসের প্রথম ও শেষ বৃহস্পতিবার রোজা রাখা মুস্তাহাব। অথবা, দুই ঈদে উত্তম পোশাক পরিধান করা।

সুন্নতে মুয়াক্কাদার সংজ্ঞাঃ যে আমলকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইবাদত হিসেবে পাবন্দীর সাথে করেছেন। কখনো ওজর ছাড়া ছেড়ে দিয়েছেন বা নিজেতো ছাড়েননি কিন্তু যে ছেড়ে দিয়েছে তাকে ভর্ৎসনা করেননি। যে আমলকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন সেগুলোকে সুন্নাতে মুয়াক্কাদা বলা হয়।

উদাহরণঃ ফজরের দুই রাকআত সুন্নাত নামাজ।

সুন্নাতে গায়রে মুয়াক্কাদার সংজ্ঞাঃ- রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং তার সাহাবাগণ যে সকল আমল ধারাবাহিকভাবে করেন নি বরং ওজর ছাড়াও মাঝে মধ্যে তরক করেছেন, তাকে সুন্নাতে গায়রে মুয়াক্কাদা বা সুন্নাতে যায়েদা বলে।

উদাহরণঃ আসরের চার রাকআত সুন্নাত নামাজ।

ওয়াজিব : ইসলামী পরিভাষায় যে বিধান সুনিশ্চিত দলিলের আলোকে প্রমাণিত নয় বরং প্রবল ধারণাপ্রসূত দলিলের ভিত্তিতে প্রমাণিত তাকে ওয়াজিব বলা হয়। ওয়াজিব কাজ ফরজের ন্যায় অবশ্য করণীয়। তবে পার্থক্য এতটুকু যে, কেউ ফরজ অস্বীকার করলে কাফের হয়ে যায় কিন্তু ওয়াজিব অস্বীকার করলে কাফের হয় না, তবে ফাসেক হয়ে যায়।

উদাহরণঃ বেতরের নামাজ পড়া, কুরবানী করা, ফেতরা দেয়া ইত্যাদি। এছাড়া দুই লজ্জাস্থান পরস্পর মিলিত হলে গোসল ওয়াজিব হয়।

আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যখন কেউ স্ত্রীর চার শাখার মাঝে বসে তার সাথে সহবাসের চেষ্টা করে, তখন গোসল ওয়াজিব হয়ে যায়।

(সূনান নাসাঈ হাদিস নম্বরঃ ১৯১ হাদিসের মানঃ সহিহ)।

ফরজ: যে বিধানটি অকাট্য দলীল দ্বারা প্রমাণিত তাকে ফরজ বলা হয়।

অর্থাৎ ইসলাম ধর্মে ফরজ বলতে বুঝায় আল্লাহ তায়ালা তার বান্দার উপর যেসব কাজ অাবশ্যক করেছেন। যে সকল কাজগুলো পালন করাই হচ্ছে ফরজ। ফরজ কাজগুলো যে কোনো মুসলমানকে অবশ্যই করতে হবে। ফরজ কাজ করলে সওয়াব আছে, না করলে গুনাহ হবে।

উদাহরণঃ নিশ্চয়ই নামাজ মুমিনদের উপর ফরজ করা হয়েছে নির্দিষ্ট সময়ের ভিত্তিতে। (আন-নিসা আয়াতঃ ১০৩)

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
09 জানুয়ারি "সালাত" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন মোঃ দুলাল মিয়া (11 পয়েন্ট)
2 টি উত্তর

312,940 টি প্রশ্ন

402,502 টি উত্তর

123,637 টি মন্তব্য

173,341 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...