295 জন দেখেছেন
"হাদিস" বিভাগে করেছেন (17 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (587 পয়েন্ট)
ইসলাম সংসার ভাঙ্গাকে পছন্দ করে না। তাই স্বাভাবিকভাবে ইসলামে পছন্দনীয় নয়। তবে নিরূপায় অবস্থায় তালাক দেয়ার অনুমতি রয়েছে। এক্ষেত্রে করণীয় হল, প্রাথমিকভাবে যার কারণে তালাক দেয়ার প্রয়োজন দেখা দিয়েছে,তাকে বুঝানো, নিজের বুঝানোর মাধ্যমে কাজ না হলে, পরিবারের মাধ্যমে বুঝানো, মুরব্বীদের মাধ্যমে বুঝানো। তারপরও যদি ঠিক না হয়। তাহলে ইসলামী শরীয়ত এক তালাক দেয়ার অনুমতি প্রদান করে।

এটি স্বাভাবিক নিয়ম। আর স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক দেয়ার জন্য জরুরী হল, স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে তালাক দেয়ার অধিকার দেয়া। যদি তালাকের অধিকার স্বামী স্ত্রীকে না দিয়ে থাকে, তাহলে স্ত্রী স্বামীকে তালাক দিতে পারবে না।

বর্তমানে কাবিননামায় স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক দেয়ার অধিকার দিয়ে দেয়া হয়। সে হিসেবে স্ত্রীও স্বামীকে তালাক দিতে পারে নৈতিক কারণে। স্বামী যদি স্ত্রীকে তালাক দেয়ার অধিকার দিয়ে থাকে, তাহলে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক দেয়ার জন্য স্বামীর মঞ্জুরী জরুরী নয়। স্বামীর দেয়া অধিকার বলে স্ত্রী নিজের উপর তালাক পতিত করে আলাদা হয়ে যেতে পারবে। কিন্তু যদি স্বামী যদি স্ত্রীকে তালাক দেয়ার অধিকার না দিয়ে থাকে, তাহলে স্ত্রী নিজের উপর তালাক পতিত করতে পারবে না।

তবে এক্ষেত্রে স্ত্রী নিজের উপর তালাক নেয়ার জন্য স্বামীর সাথে খোলা তালাকের চুক্তি করতে পারে। সেটি হল, অর্থের বিনিময়ে স্বামীর কাছ থেকে তালাক নিয়ে নেয়া।

উপরোক্ত বক্তব্যের আলোকে আপনি নিজেই নির্ধারিত করে নিতে পারবেন উক্ত মহিলার এখন কী করা উচিত। যদি স্বামীর সাথে থাকা সম্ভব হয়, বা স্বামীকে বুঝিয়ে ভাল পথে নিয়ে আসা সম্ভব হয়, তাহলে তালাকের পথে না যাওয়াই হবে উত্তম কাজ। তারপরও যদি সম্ভব না হয়, তাহলে উপরোক্ত মূলনীতির আলোকে মহিলা নিজের জন্য উপযুক্ত অবস্থান আরোপ করতে পারবে।

قوله تعالى- فَإنْ خِفْتُمْ أَنْ لاَ يُقِيمَا حُدُودَ اللهِ فَلاَ جُنَاحَ عَلَيْهِمَا فِيما افْتَدَتْ بِهِ  (سورة البقرة-229)

আর যদি তোমরা আশংকা কর যে, তারা উভয়ে আল্লাহর সীমারেখা রক্ষা করতে পারবে না, তবে সেক্ষেত্রে স্ত্রী যদি বিনিময় দিয়ে নিষ্কৃতি পেতে চায় তাহলে উভয়ের মধ্যে কারো কোন অপরাধ নেই। {সুরা বাকারা-২২৯}

وفي رد المحتار- وأنواعه ثلاثة : تفويض ، وتوكيل ، ورسالة وألفاظ التفويض ثلاثة : تخيير وأمر بيد ، ومشيئة .

( قال لها اختاري أو أمرك بيدك ينوي ) تفويض ( الطلاق ) لأنها كناية فلا يعملان بلا نية ( أو طلقي نفسك فلها أن تطلق في مجلس علمها به ) مشافهة أو إخبارا ( وإن طال ) يوما أو أكثر ما لم يوقته ويمضي الوقت قبل علمها ( ما لم تقم ) لتبدل مجلسها حقيقة ( أو ) حكما بأن ( تعمل ما يقطعه ) مما يدل على الإعراض لأنه تمليك فيتوقف على قبول في المجلس لا توكيل ، فلم يصح رجوعه ، حتى لو خيرها ثم حلف أن لا يطلقها فطلقت لم يحنث في الأصح ( لا ) تطلق ( بعده ) أي المجلس ( إلا إذا زاد ) في قوله طلقي نفسك وأخواته ( متى شئت أو متى ما شئت أو إذا شئت أو إذا ما شئت ) فلا يتقيد بالمجلس ( ولم يصح رجوعه ) لما مر (رد المحتار-كتاب الطلاق، باب تفويض الطلاق-4/452)


পরে তাহারা সংসার করতে চাইলে জায়েজ হবে কিনা? এই প্রশ্নটির উত্তর জানতে অপেক্ষা করুন।


মূলঃ http://jamiatulasad.com/?p=2628
করেছেন (4 পয়েন্ট)
thanks#=================
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

289,153 টি প্রশ্ন

374,671 টি উত্তর

113,332 টি মন্তব্য

157,664 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...