বন্ধুহৃদয় (@বন্ধুহৃদয়)

মসজিদে মান্নত করা শুদ্ধ নয় তাই তা পূর্ণ করাও আবশ্যক নয়। সুতরাং,যদি কেউ এধরণের মান্নত করে এবং পূর্ণ‌ও করে,তাহলে মান্নত শুদ্ধ না হ‌ওয়ায় মসজিদে দেয়া উক্ত মান্নতকৃত পশু বা বস্তুকে নফল সাদাকার পশু ধরা হবে এবং উক্ত পশু মসজিদ থেকে কিনে খাওয়া বৈধ হবে। উল্লেখ্য,যদি কেউ আল্লাহর নামে মান্নত করে এবং মান্নতকৃত বস্তু মসজিদে আগন্তুক গরীব-মিসকিনকে দেয়ার নিয়ত করে,তাহলে মান্নত শুদ্ধ হবে এবং পূর্ণ করাও আবশ্যক হবে। সূত্রঃ বাদায়েউস সানায়ে ৫/৮২ দারুল উলুম ১২/২৯,১৩২ রহমানিয়া ২/৩৪৭

তাসমিমা নামের অর্থ কি ?

বন্ধুহৃদয়
Oct 16, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন

তাসমিম (تسميم) অর্থ, খাদ্যে বিষ মিশানো,কথা পেঁচিয়ে জটিল করা।

সূত্রঃ মু'জামুল গণী,মু'জামুর রায়িদ

উল্লেখ্য,তাসমিমা  তাসমিম এক‌ই।
হ্যাঁ,যাকাত ও উশর প্রদানের খাত এক‌ই। অর্থাৎ যাঁদেরকে যাকাত দিতে হয়, তাঁদেরকেই উশর দিতে হয়। সূত্রঃ শারহুল বেকায়া ১/২৩৬

মেয়েদের পর্দা সম্পর্কিত(বিস্তারিত ভিতরে)?

বন্ধুহৃদয়
Oct 15, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
সামাজিকতা রক্ষার্থে কোন মেয়ে তার দুলাভাই বা গাইরে মাহরামের সামনে পর্দা করা ছাড়া যেতে পারবেনা।তবে একান্ত প্রয়োজনে পূর্ণ পর্দা করে সামনে যেতে পারবে এবং কথাও বলতে পারবে।তবে কথা বলার ক্ষেত্রে নরম বা মিষ্টি সুর যেন প্রকাশ না পায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। পর্দা বিষয়ে পবিত্র কুর‌আনুল কারীমের বিধান গুলির প্রতি লক্ষ্য করলে এমনটাই প্রতিয়মান হয়। নিম্নে প্রদত্ত আয়াত সমূহ লক্ষ্য করুন! হে নবী! আপনি আপনার পত্নীগণকে ও কন্যাগণকে এবং মুমিনদের স্ত্রীগণকে বলুন, তারা যেন তাদের চাদরের কিয়দংশ নিজেদের উপর টেনে নেয়। এতে তাদেরকে চেনা সহজ হবে। ফলে তাদেরকে উত্যক্ত করা হবে না। আল্লাহ ক্ষমাশীল পরম দয়ালু।(সূরা আহযাব আয়াতঃ৫৯) হে নবী পত্নীগণ! তোমরা অন্য নারীদের মত নও; যদি তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, তবে পরপুরুষের সাথে কোমল ও আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে কথা বলো না, ফলে সেই ব্যক্তি কুবাসনা করে, যার অন্তরে ব্যাধি রয়েছে তোমরা সঙ্গত কথাবার্তা বলবে।(সূরা আহযাব আয়াতঃ৩২) তোমরা  গৃহাভ্যন্তরে অবস্থান করবে-মূর্খতা যুগের অনুরূপ নিজেদেরকে প্রদর্শন করবে না। নামায কায়েম করবে, যাকাত প্রদান করবে এবং আল্লাহ ও তাঁর রসূলের আনুগত্য করবে। হে নবী পরিবারের সদস্যবর্গ। আল্লাহ কেবল চান তোমাদের থেকে অপবিত্রতা দূর করতে এবং তোমাদেরকে পূর্ণরূপে পূত-পবিত্র রাখতে। (সূরা আহযাব আয়াতঃ৩৩) তোমরা তাঁর পত্নীগণের কাছে কিছু চাইলে পর্দার আড়াল থেকে চাইবে। এটা তোমাদের অন্তরের জন্যে এবং তাঁদের অন্তরের জন্যে অধিকতর পবিত্রতার কারণ।(সূরা আহযাব আয়াতঃ৫৩) উল্লেখ্য, সর্বোচ্চ তাক‌ওয়া পূর্ণ পর্দা হল পুরুষদের সামনে না যাওয়া।যদি কেউ এবিষয়ে কঠোরতা করে, তাহলে আশা করা যায় অবশ্যই আল্লাহ পাক তাঁকে এবিষয়ে সহযোগিতা করবেন। আল্লাহ পাক সকলের জন্য যথেষ্ট হোন!
হ্যাঁ,জামাতে এক দুই রাকাত ছুটে গেলে পূর্ণ জামাতে নামাজ আদায়ের স‌ওয়াব পাওয়া যাবে।এ বিষয়ে আবু হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত এক হাদিসে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি জামাতে এক রাকাত পেল সে নামাজ পেল। বুখারী শরীফ,৫৪০ মুসলিম শরীফ ৬০৭ আবু দাউদ শরীফ ১১২১  উল্লেখিত হাদিসে রাকাত পেলে নামাজ পা‌ওয়ার অর্থ হিসেবে ফজিলত বা এজাতীয় কিছু উদ্দেশ্য বলে হাদিস বিশারদ গণ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তবে, লক্ষণীয় বিষয় হল, জামাতে নামাজ না পাওয়া যেন অলসতার কারণে না হয়; কারণ,এতে ফজিলতের পরিবর্তে গোনাহগার হতে হবে।
যেসব কার্পেট মসজিদে ব্যবহার করা হয়, এধরণের কার্পেট দোকান থেকে কিনে বাসায় ব্যবহার করতে পারবেন (তবে,যেসব কার্পেট বাইতুল্লাহ বা কাবা ঘর বিশিষ্ট, সেগুলো বাসায় ব্যবহার করা আদব পরিপন্থি) আর যেসব কার্পেট মসজিদে ব্যবহার করা হয়েছে,(যদিও তা পরিত্যক্ত হোক) তা যেকোন ধরনের হোক না কেন, উপযুক্ত মূল্য দিয়ে ক্রয় করা ছাড়া বাসায় বা ঘরে ব্যবহার করা বৈধ নয়। সূত্রঃ কিতাবুন নাওয়াযিল ১৩/৪৪৭

ইমামের পিছনে নামায আদায়ের নিয়ম।

যিনি ইমামের পেছনে নামাজ আদায় করেন তাকে ‘মুক্তাদি’ বলা হয়।

    মুক্তাদি প্রথমে ইমামের পেছনে এক্তেদার করার নিয়ত করবে। এক্তেদার নিয়ত ব্যতীত মুক্তাদির নামাজ সহীহ হবে না।
    ইমামের তাকবীরে তাহরীমা ‘আল্লাহু আকবার’ শেষ হওয়ার পূর্বে মুক্তাদির তাকবীর বলা শেষ করা যাবে না। অর্থাৎ এমনভাবে তাকবীর তথা নামাজের শুরুতে আল্লাহু আকবার বলবে, যেন ইমামের শেষ হ‌ওয়ার পরে শেষ হয়।
 ইমাম সূরা/কিরাত শুরু করলে মুক্তাদি ছানা পড়া থেকে বিরত থাকবে। অর্থাৎ ইমাম সূরা পড়া শুরু করার আগে মুক্তাদি ছানা  পড়বে।
    মুক্তাদি ইমামের পেছনে সূরা ফাতিহা বা কিরাত কোনটা পাঠ করবে না। সূরা ফাতিহার পূর্বে বিসমিল্লাহও পড়বে না।
    মুক্তাদি রুকু থেকে উঠার সময় ‘সামিআল্লাহুলিমান হামিদা’ না বলে ‘রব্বানা লাকাল হামদ’ বলে উঠবে।
    সালাম ফিরানোর সময় ইমামের ‘আসসালামু’ বলার আগে মুক্তাদির ‘আসসালামু’ বলা যেন শেষ না হয়।
    ইমামের সালাম ফিরানোর পর সাথে সাথে মুক্তাদির সালাম ফিরানো উত্তম।
    ডান দিকে সালাম ফিরানোর সময় ডান দিকের মুসল্লী এবং নেককজার জিনদেরকে সালাম করার নিয়ত করবে, আর বাম দিকে সালাম ফিরানোর সময় বাম দিকের মুসল্লী এবং নেককার জিনদেরকে সালাম করার নিয়ত করবে। ইমাম বাম দিকে থাকলে বাম সালামে তাঁরও নিয়ত করবে। আর ইমাম সোজা বরাবর থাকলে উভয় সালামেই তাঁর নিয়ত করবে। -সূত্র : আহকামে যিন্দেগী

লিয়াকত শব্দের অর্থ?

বন্ধুহৃদয়
Oct 12, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
লিয়াকত (لياقة) আরবী শব্দ,যার অর্থ হল; যোগ্যতা,দক্ষতা, উপযুক্ততা,যথাযথতা, উপযোগিতা। সূত্রঃ আল-মুজামুল ওয়াফি ৮৫৬

ফরয গোসল শুদ্ধ হবে কি?!?

বন্ধুহৃদয়
Oct 10, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
এক্ষেত্রে পুনরায় গোসল করতে হবেনা; শুধু শুকনো স্থানে পানি পৌঁছায় দিলে গোসল শুদ্ধ হবে। এমনি এক ধরণের একটি মাস‌আলা শারহুল বেকায়ার লেখক আল্লামা উবাইদুল্লা বিন মাসউদ (র) তায়াম্মুম অধ্যায়ে নিয়ে এসেছেন; যার সারমর্ম হচ্ছে, নাপাক ব্যক্তি গোসল করতে গিয়ে যদি এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়,যে তাঁর পিঠের এক অংশ শুকনো থাকতেই পানি শেষ হয়ে গেছে,তাহলে পরবর্তীতে সেই অংশ ভিজানো পরিমাণ পানি পেলে সেই অংশ ধুয়ে নেয়াই যথেষ্ট হবে। শারহুল বেকায়া ১/৯৫ সহিহ মুসলিম শরীফের ওযু বিষয়ক একটি হাদিস থেকেও উপরোক্ত মাস‌আলার সমাধান পেতে পারি। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে,এক সফরে কিছু লোক (সাহাবা রাঃ) ওযু করেছিলেন এমনভাবে, তাঁদের গোড়ালি শুকনো ছিল। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁদেরকে দেখে বললেন,শুকনো গোড়ালি বিশিষ্ট লোকদের জন্য জাহান্নামের দূর্ভোগ! তোমরা ওযু পূর্ণ করো। সহিহ মুসলিম হাদীস নং ২৪১ লক্ষ্য করুন,উক্ত হাদীসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁদেরকে নতুন করে ওযু করার নির্দেশ দেননি; বরং, পূর্ণ করতে বলেছেন।এথেকে বুঝা যায়,কোন অংশে পানি না পৌঁছলে সেই অংশে পানি পৌঁছালে যথেষ্ট।
বীর্য নির্গত হলে কোন কিছু দিয়ে পরিষ্কার করে নামাজ আদায় করা যাবেনা।কারণ, বীর্য নির্গত হ‌লে ব্যক্তি নাপাক হয়ে যায়।আর নাপাক অবস্থায় নামাজ আদায় করা যায়না। এধরণের নাপাকির সম্মুখীন হলে এবং নামাজ আদায়ের ইচ্ছা থাকলে, আল্লাহ তায়ালা মুমিনদের পবিত্রতা অর্জনের নির্দেশ দিয়েছেন। সূরা আল মায়িদা ( আয়াত, ৬)  এমনকি এধরণের ব্যক্তিদের কে মসজিদে গমনে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আমি হায়েজ বিশিষ্ট মহিলা এবং নাপাক বিশিষ্ট ব্যক্তির জন্য মসজিদ বৈধ রাখি না।( বাইহাকী শরীফ ৪৪৯৫)

এমন কেন হচ্ছে?

বন্ধুহৃদয়
Oct 7, 2019-এ প্রশ্ন করেছেন

কোন এ্যাপ আনষ্টল করলে নিচের লেখা আসে,অথচ এ্যাপটি মোবাইলে শো করছে।উপায় কি? বি,দ্র: মোবাইল সিম্ফনি i20image

বাসির শব্দের অর্থ কী?

বন্ধুহৃদয়
Oct 6, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
বাসির ( بصير ) শব্দের অর্থঃ দ্রষ্টা, দৃষ্টি সম্পন্ন, দূরদৃষ্টি সম্পন্ন, দূরদর্শী। বহুবচন,বুসারা (بصاراء ) বাসির আল্লাহর গুণবাচক নাম সমূহের মধ্যে একটি।সে হিসেবে অর্থ হবে সর্বদ্রষ্টা। সূত্রঃ আল-মুজামুল ওয়াফি ২২০

মাসআলাটির দলিল ভিত্তিক উত্তর চাই।?

বন্ধুহৃদয়
Oct 6, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
আপনার পিতা মারা যাওয়ার আগে উল্লেখিত কথাকে (ওমুক জায়গায় আমি তো পারলাম না,তোরা একটা মাদ্রাসায় বানাইছ) শরীয়তের দৃষ্টিতে অসিয়াত বলা হবে।আর অসিয়াতের ক্ষেত্রে শরীয়ত কর্তৃক নির্দেশনা হল; ব্যক্তির পরিত্যক্ত সম্পত্তির এক তৃতীয়াংশ দিয়ে তা পালন করা আবশ্যক,যদি পালন করা সম্ভব হয়।আর যদি এমন অসিয়াত করেন যা এক তৃতীয়াংশ দিয়ে পালন করা যায়না, বরং আরো বেশি ব্যয় যোগ্য, তাহলে এক তৃতীয়াংশ থেকে অতিরিক্ত ব্যয় করা ওয়ারিশদের জন্য ওয়াজিব নয়।তবে এক তৃতীয়াংশ ব্যয় করতে হবে। উল্লেখিত শরীয়ত কর্তৃক নির্দেশনা অনুযায়ী আপনার পিতার সমস্ত সম্পত্তির এক তৃতীয়াংশ দিয়ে মাদ্রাসা বানানো আপনার/আপনাদের জন্য ওয়াজিব হয়ে গেছে।তবে এক তৃতীয়াংশ থেকে অতিরিক্ত অংশ ব্যয় করা ওয়াজিব নয়। সূত্রঃ সহিহ বুখারী হাদীস নং ৫৬৬৮ কিতাবুন নাওয়াযিল ১৮/২৬-২৭

কোনটি ইউনিট সংখ্যা?

বন্ধুহৃদয়
Oct 5, 2019-এ প্রশ্ন করেছেন

ছবির মিটারটিতে কয়েক ধরনের সংখ্যা আসে। এখানে কোন সংখ্যাটি দ্বারা ইউনিট বুঝানো হয়।image

কুরআনে আল্লাহ (الله) শব্দ কত বার এসেছে?

বন্ধুহৃদয়
Oct 1, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
কুর‌আনুল কারীমে 'আল্লাহ' শব্দটি ২৬৯৯ বার এসেছে। সূত্রঃ আল-ইবতিসিমা, নভেম্বর সংখ্যা,২০০৬ ইং
পবিত্র কুর‌আনুল কারীমে দশজন মিসকিনকে, কসম কারী তার পরিবার নিয়ে যে ধরনের খাবার খেয়ে থাকে, তার মধ্যম পর্যায়ের খাবার খাওয়ানোর নির্দেশ বর্ণিত হয়েছে।  সুতরাং, বাসায় রান্না করে খাবার খাওয়ানো যাবে, এবং খাবার কিনেও খাওয়ানো যাবে,এতে সমস্যা নেই।তবে লক্ষ্য রাখতে হবে,যেন খাবার মধ্যম পর্যায়ের হয়, এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ হয়। সূত্রঃ সূরা আল মায়িদা (৮৯) কিতাবুন নাওয়াযিল ১০/২৮৬

যেসকল সূরার শুরুতে হুরুফুল মুকাত্তা‌আত আছে সেগুলো নিম্নে দেওয়া হলো।

  1. সূরা বাকারা (১).              الم 
  2. সূরা আল- ইমরান (৩).      الم
  3. সূরা আ'রাফ (৮)            المص
  4. সূরা ইউনুস (১১).             الر
  5. সূরা হু-দ (১১)                   الر
  6. সূরা ইউসুফ (১২).            الر
  7. সূরা র'দ (১৩)                 المر
  8. সূরা ইবরাহী-ম (১৩)           الر
  9. সূরা হিজর (১৩).              الر
  10. সূরা মারইয়াম (১৬).   كهيعص
  11. সূরা ত্ব-হা (১৬).                 طه
  12. সূরা শু'আরা (১৯).        طسم
  13. সূরা নমল (১৯).             طس
  14. সূরা কসাস (২০).           طسم
  15. সূরা আনকাবু-ত (২০).      الم
  16. সূরা রু-ম (২১).                 الم
  17. সূরা লোকমান (২১).        الم
  18. সূরা সাজদাহ (২১).         الم
  19. সূরা ইয়া-সি-ন (২২).         يس
  20. সূরা ছ-দ (২৩).                ص
  21. সূরা মুমিন (২৪).              حم
  22. সূরা হা-মিম সাজদাহ (২৪) حم
  23. সূরা শু-রা (২৫).          حم.عسق
  24. সূরা যুখরুফ (২৫).            حم
  25. সূরা দুখান (২৫).               حم
  26. সূরা জা-ছিয়া (২৫).           حم
  27. সূরা আহকা-ফ (২৬).        حم
  28. সূরা ক্ব-ফ (২৬).               ق

      ২৯. সূরা কলাম (২৯).             ن

উল্লেখ্য,বন্ধনীর ভিতরের সংখ্যা দ্বারা পারা বুঝানো হয়েছে।


দোয়া করার সময় হাঁচি আসলে গোনাহ হয়না। এতে গোনাহের কিছু নেই।তবে হাঁচি আসলে হাঁচি দাতার জন্য আলহামদুলিল্লাহ বলার কথা হাদিসে বর্ণিত হয়েছে।
ভুলবশত ফরজ নামাজের তৃতীয় বা চতুর্থ রাকাতে সূরা ফাতিহার সঙ্গে কোন সূরা মিলিয়ে ফেললে সেজদা সাহু ওয়াজিব হয়না।তবে এটা অনুত্তম। সূত্রঃ ফাতাওয়ায়ে শামী ২/১৫ আল-বাহরুর রায়েক ১/৩২৬ কিতাবুন নাওয়াযিল ৩/৫৩৩

মাথা ঘোরা ও বমি?

বন্ধুহৃদয়
Sep 28, 2019-এ প্রশ্ন করেছেন
চল্লিশোর্ধ কোন মহিলার কিছু দিন পর পর প্রচন্ড মাথা ঘোরে ও কয়েকবার বমি হয়।এমন কেন হয়?

পাক-পবিত্রতা সম্পর্কে প্রশ্ন?

বন্ধুহৃদয়
Sep 24, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
ব্যক্তির যে অংশে নাপাকি লাগে সেই অংশ শুধু নাপাক হয় এবং তা পবিত্র করতে হয়। সুতরাং যদি বাস্তবে আপনার হাতে নাপাকি লেগে থাকে, তাহলে শুধু হাত নাপাক হয়েছে, অন্য অংশ নয়। তবে সন্দেহ হলে সন্দেহ থেকে মুক্তির জন্য পবিত্রতা অর্জন করাই ভালো।
হ্যাঁ,স‌ওয়াব পাবেন যদি এতে প্রশ্নকর্তার উপকার করার নিয়ত থাকে এবং বিষয়টি শরীয়ত বিরোধী না হয়।তখন আপনার উত্তরটি ভালো কাজের দিকনির্দেশক হিসেবে গণ্য হবে এবং আপনি স‌ওয়াবের অধিকারী হবেন।এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, ভালো কাজের দিকনির্দেশক ব্যক্তি হুবহু ঐ কাজ করার সমপরিমাণ স‌ওয়াবের অধিকারী হয়।(তিরমিযী ২৬৭০, মুসনাদে আহমাদ ২৩০২৭)

ইমামের জন্য ইমামতির নিয়ত করা কি শর্ত?

বন্ধুহৃদয়
Sep 24, 2019-এ প্রশ্ন করেছেন
ইমামের নামাজ বা মুক্তাদির নামাজ শুদ্ধ হ‌ওয়ার জন্য ইমাম সাহেবের জন্য ইমামতির নিয়ত করা কি শর্ত? যদি ইমাম সাহেব এই নিয়ত না করেন, তাহলে নামাজের কি ক্ষতি হবে? বা তিনি কি গোনাহগার হবেন?
ডিম কেনার পর বাড়িতে এসে নষ্ট পেলে অর্থাৎ পঁচা হলে, দোকানদার থেকে মূল্যের দাবি করতে পারবে, ডিমের নয়।তবে দোকানদার ডিম দিতে রাজি হলে নিতে কোন সমস্যা নেই। সূত্রঃ হেদায়া ৫/৬৪ মাকতাবাতুল বুশরা পাকিস্তান, কম্পিউটার কম্পোজ।
নামাজে প্রত্যেক ব্যক্তি (চাই সে ইমাম হোক বা মুক্তাদি অথবা একাকি নামাজ আদায়কারী) তাঁর নিজের শারীরিক গঠন অনুযায়ী যেভাবে দাঁড়ালে কষ্ট হবেনা সেভাবে দাঁড়াবে।যেন অস্বাভাবিক ভাবে দাঁড়ানোর দ্বারা নামাজের একাগ্রতা নষ্ট না হয়। তবে স্বাভাবিক গঠনের লোকদের জন্য চার আঙ্গুল পরিমাণ ফাঁক রেখে দাঁড়ানোই যথেষ্ট। সূত্রঃ রদ্দুল মুহতার ৩/৩৮৪ হিন্দিয়া ৩/৬১

ছেলেদের জন্য কি লাল রঙের কাপড় পড়া হারাম ?

বন্ধুহৃদয়
Sep 23, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন

শুধু কুসুম- লাল কাপড় পুরুষদের জন্য ব্যবহার করা মাকরুহ তাহরীমী তথা হারাম বলা যায়।আর কুসুম- লাল না হলে তা মাকরুহ তানযিহী তথা অনুত্তম, পরিধান না করা ভালো।তবে শর্ত হচ্ছে কাপড়টি মহিলাদের কাপড়ের সাদৃশ্য না হতে হবে।যদি মহিলাদের কাপড়ের সাদৃশ্য হয় তাহলে এধরণের লাল কাপড়‌ও পুরুষদের জন্য ব্যবহার করা মাকরুহ তাহরীমী হবে।

তথ্যসূত্রঃ ফাতাওয়া শামী ৯/৫১৫ ফাতাওয়া রশিদিয়া ৫৭৪ কিতাবুন নাওয়াযিল ১৫/৩৩০ ইমদাদুল ফাতাওয়া ৪/১২৫ ফাতাওয়া রহমানিয়া ২/২৭১

মুসআব নামের অর্থ কি?

বন্ধুহৃদয়
Sep 22, 2019-এ উত্তর দিয়েছেন
মুস‌আব অর্থ কঠিন, জটিল, কঠোর। সূত্রঃ আল-মুজামুল ওয়াফি ৬২৭

Loading...