*তথ্যসূত্র যোগ করবেন 

*তথ্যসূত্র যোগ করবেন  

*তথ্যসূত্র যোগ করবেন  

এইচএসসি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ৫ম অধ্যায় এর সম্পূর্ণ নোট(হ্যান্ডনোট) প্রয়োজন?

১০ এপ্রিল, ২০১৯

বরাবর,

প্রধান শিক্ষক

রতনপুর উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম

চকবাজার, চট্টগ্রাম।

 

বিষয়ঃ জরিমানা মওকুফের জন্য আবেদন।

 

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আপনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একজন নিয়মিত ছাত্র। বিগত দিনে আমি সময়মতো বেতনাদি পরিশোধ করে আসছি। কিন্তু আমার পিতা চাকরি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণে ঢাকায় অবস্থান করায় আমি গত মার্চ মাসের বেতন নির্ধারিত তারিখের মধ্যে পরিশোধ করতে পারি নি। এজন্য প্রতিষ্ঠানের নিয়মানুযায়ী আমার উপর জরিমানা ধার্য করা হয়েছে। এমতাবস্থায় আমি জরিমানা মওকুফ করার প্রার্থনা জানাচ্ছি।

অতএব, মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন, আমার অনিচ্ছাকৃত বিলম্বের কথা সহানুভূতি সহকারে বিবেচনা করে ধার্যকৃত জরিমানা মওকুফ করে মার্চ মাসের বেতন গ্রহণের অনুমতি দানে বাধিত করবেন।

 

নিবেদক,

আপনার একান্ত অনুগত ছাত্র,

রকিবুল ইসলাম

অষ্টম শ্রেণি

শাখাঃ ক

রোলঃ ০৫

পরাগায়ন না ঘটলে, নিষেক ছাড়া ভ্রূণ তথা ফল ও বীজ সৃষ্টি হতে পারে না, তাই উদ্ভিদ বংশ বিস্তার করতে না পেরে ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ফলে মানুষ সহ সমস্ত প্রাণীকুল খাদ্যাভাবে বিলুপ্ত হবে। পরাগায়নের মাধ্যমে নিষেক ঘটে ফল ও বীজ সৃষ্টি হয় বলে আমরা বা প্রাণীকুল খাদ্য পায়। এজন্য আমাদের বেঁচে থাকা পরাগয়নের উপর নির্ভর করে এবং পরোক্ষভাবে উদ্ভিদের বংশ বিস্তার না ঘটলে উদ্ভিদ ধ্বংস হয়ে খাদ্য উৎপাদনের উৎপাদক সহ অক্সিজেন এর অভাবে প্রাণীকুল বিলুপ্ত হয়ে যাবে। প্রাণী কতৃক কার্বন-ডাই-অক্সাইড এই উদ্ভিদই গ্রহন করে। ফলে উদ্ভিদকুল ধ্বংস হলে পরিবেশ ও বায়ুমন্ডলও দূষিত হয়ে পড়বে । সর্বোপরি, বলা যায় যে সমস্ত জীবজগত টিকিয়ে রাখতে উদ্ভিদের পরাগয়নের কোনো বিকল্প নেই। তাই প্রকৃতিতে পরাগায়ন না হলে সমস্ত জীব জগত বিলুপ্ত হয়ে যেত

বিস্ময় এর নীতিমালা অনুসরণ  করে  আপনি একদিনে আপনার ইচ্ছানুযায়ী প্রশ্ন করতে পারবেন। এর কোনো নির্ধারিত সীমা নেই। তবে, আপনার যথেষ্ট পয়েন্ট থাকতে হবে এবং আপনার প্রতিটি প্রশ্ন যেন বিস্ময় এর নীতিমালা মেনে করা হয়, সেবিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে। বিস্ময় এর নীতিমালা বিরোধী কোনো প্রশ্ন করা যাবে না।

এটা কি করা যায়?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 02:07 AM

না, এরকম কোনো উপায় নেই।

তবে, আপনি চাইলে ঐ পেজগুলোকে না অনুসরণ (Follow) করলে এই স্টোরিগুলো আপনার সামনে আসবে না। তাই, আপনি যদি ঐ পেজগুলোকে Unfollow করে দেন, তাহলে আপনি এই সমস্যাটি থেকে পরিত্রাণ পেতে পারেন।

বার বের করার সহজ উপায়?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:57 AM

তারিখ থেকে বার বের করার সহজ ও স্বল্পসময়ে বের করা যায় এমন উপায় বলবেন।

মালিকানা স্বত্ব বিবরণী কি?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:50 AM

ব্যবসায় সম্পত্তির বিপরীতে মালিকের/ শেয়ারহোল্ডার/ অংশীদারদের দাবিকে মালিকের মূলধন বা মালিকানা স্বত্ব বলা হয়। এটি ব্যবসায়ের অন্তর্দায়।

পুঞ্জিভূত অবচয় কি?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:39 AM

অবচয়ের জন্য সরাসরি অর্থ ব্যয় করতে হয় না।অবচয় ব্যয় বাবদ প্রতি বছর নিট মুনাফা হতে যে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ সঞ্চয় করে রাখা হয়,তাকে পুঞ্জিভূত অবচয় বলে।

কার্যকরী মূলধন কি?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:36 AM

কার্যকরী মূলধন হলো সেই অর্থ যা ব্যবসায়ের দৈনন্দিন কার্যাবলী পরিচালনার জন্য যে ব্যবহৃত হয়।

লেনদেন কত প্রকার ও কি কি?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:22 AM

হিসাববিজ্ঞানে লেনদেনকে প্রধানত ২ ভাগে ভাগ করা হয়। যথাঃ 

১। মুনাফা জাতীয় লেনদেন ও 

২। মূলধন জাতীয় লেনদেন।

তরল সম্পদ কাকে বলে?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 14, 01:12 AM

তরল সম্পদ হলো নগদ বা এমন সম্পদ যা সহজেই নগদে রূপান্তর করা যায়।

অংক কয়টি?

ধ্রুবজ্যোতি
Apr 12, 02:06 PM

অংক হচ্ছেঃ ১০টি। যথাঃ ০, ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯। 

সংখ্যা গঠনের জন্য যেসব প্রতীক ব্যবহৃত হয় তাকে অংক বলে। 

অংক দুই প্রকার। যথা : 

  • স্বার্থক অংক (১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮, ৯) ও
  • সহকারি অংক (০)

অর্থাৎ, শূন্য একটি অংক।   

s, p, d, f ব্লকে কতটি করে মৌল আছে?

ধ্রুবজ্যোতি
Feb 18, 09:27 AM

S ব্লকে রয়েছে = ১৪ টি মৌল (তথ্যসূত্র)

P ব্লকে রয়েছে = ৩৬ টি মৌল (তথ্যসূত্র)
d ব্লকে রয়েছে = ৪১ টি মৌল (তথ্যসূত্র
f ব্লকে রয়েছে = ১৪ টি মৌল (তথ্যসূত্র) 

একটি নির্দিষ্ট দ্রাবকে দ্রবণীয় দুটি যৌগকে মিশ্রিত করার পর ঐ দ্রাবকে অদ্রবণীয় বা স্বল্প দ্রবণীয় নতুন যৌগ উৎপন্ন হলে যৌগটি বিক্রিয়াপাত্রের তলদেশে কঠিন পদার্থ হিসেবে জমা হয়। উৎপন্ন নতুন যৌগ দ্রাবকে দ্রবীভূত না হয়ে কঠিন পদার্থ হিসেবে জমা হলে তাকে অধঃক্ষেপ বলে। যে বিক্রিয়ায় উৎপন্ন যৌগ অধঃক্ষেপ হিসেবে পাত্রের তলদেশে জমা হয় তাকে অধঃক্ষেপণ বিক্রিয়া বলে। 

হাইড্রোকার্বন ব্যাখ্যা কর?

ধ্রুবজ্যোতি
Feb 15, 09:10 PM

কার্বন ও হাইড্রোজেন এর সমন্বয়ে গঠিত যৌগকে হাইড্রোকার্বন বলা হয়। যেমনঃ মিথেন (CH4), ইথেন (C2H4), বেনজিন (C6H6) ইত্যাদি। এই যৌগগুলোতে কার্বন ও হাইড্রোজেন ছাড়া আর কোনো মৌল নেই। 

হাইড্রোকার্বন মূলত দুই প্রকার।

  1. অ্যালিফেটিক হাইড্রোকার্বন
  2. অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন   
লক্ষ্যবস্তুর অবস্থান   প্রতিবিম্বের অবস্থান 
অসীমে প্রধান ফোকাসে 
অসীম ও বক্রতার কেন্দ্রের মাঝে  কেন্দ্র ও প্রধান ফোকাসের মাঝে  
বক্রতার কেন্দ্রে বক্রতার কেন্দ্রে 
বক্রতার কেন্দ্র ও প্রধান ফোকাসের মাঝে   অসীম ও বক্রতার কেন্দ্রের মাঝে 
প্রধান ফোকাসে   অসীমে 
প্রধান ফোকাসে ও মেরুর মাঝে   দর্পনের পেছনে 


একটি ট্রান্সফর্মার এর মুখ্যকুন্ডলী ও গৌণকুন্ডলীর ভোল্টেজ যথাক্রমে 200 V এবং 50 V. মুখ্যকুন্ডলীর তড়িৎপ্রবাহ 5 A হলে, গাণিতিকভাবে প্রমাণ কর যে, " ট্রান্সফর্মার এ ক্ষমতা ধ্রুব থাকে"। 


এখানে,

Ep= 220 V

Ip= 5 A

Es= 50 V

Is =? 


আমরা জানি,

Ep/Es=Is/Ip

বা, EsIs=EpIp

বা, Is=(EpIp)/Es

বা, Is=(220*5)/50

বা, Is=1100/5

বা, Is=22 A


মুখ্যকুন্ডলীর মোট ক্ষমতা, Pp=EpIp=220*5=1100 W

গৌণকুন্ডলীর মোট ক্ষমতা, Ps=EsIs=50*22=1100 W


অতএব, উপরের গাণিতিক বিশ্লেষণ হতে বলা যায় যে, মুখ্যকুন্ডলীর মোট ক্ষমতা ও গৌণকুন্ডলীর  মোট ক্ষমতা সমান। অর্থাৎ, ট্রান্সফর্মার ক্ষমতা ধ্রুব রাখে।  

ধরি, ঘনকের একবাহু= a মিটার 

∴ ঘনকের সম্পূর্ণ পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল = 96 মিটার

বা, 6a = 96

বা, a2 =96/6

বা, a2 = 16

বা, a = √16

 a = 4 মিটার

আবার,

পৃষ্ঠতলের কর্ণের দৈর্ঘ্য = √3*a

                                   = √3*4

                                   = 6.93 মিটার (প্রায়) 


বর্গের ১ বাহুর দৈর্ঘ্য = x মিটার 

ধরি, বর্গের কর্ণের দৈর্ঘ্য = P

অতএব, P2=x2+x(পিথাগোরাসের সূত্রমতে)

বা, P2=2x2

বা, P=√(2x2)

বা, P =√2x


এখন,

কর্ণের উপর অঙ্কিত বর্গক্ষেত্রের ক্ষেত্রফল

(√2x)2

=  2x2

উত্তরঃ2x2  বর্গমিটার।

Eboard results এই ওয়েবসাইট এ গিয়ে

পরীক্ষার নাম, পরীক্ষার সাল, বোর্ডের নাম, রেজাল্ট টাইপ (Individual), রোল নম্বর, রেজিষ্ট্রেশন নম্বর এবং সিকিউরিটি কী পূরণ করে মার্কসীটসহ রেজাল্ট দেখতে পারবেন।