আআত্মহত্যা কখনোই সমাধান হতে পারে। যে বিষয়ে ডিপ্রেসনে আছেন। তা  ধর্যের সহিত মোকাবেলা করুন।image 

স্ত্রীর সাথে কথা বলার সময় এক ধরনের কামরস বের হয়, এরপরই পেট ব্যাথা শুরু হয়। এটা কি কোন রোগ?? হলে প্রতিকার কি?   
সর্বপ্রথম কথা  হচ্ছে খারাপ বন্ধুদের সাথে মিলামিশা ত্যাগ করতে হবে। যদি একেবারে বন্ধ করতে না পারেন। তবে পরিমান কমান। আগে যদি দিনে ৩ টা খেতেন এখন একটা খান, এভাবে ছাড়তে পারবেন।    
সময়টা আসলে কাজের উপর ডিপেন্ড করে। যেমন বিজনেস কার্ড বানাতে তেমন বেশি সময় লাগে না। কিন্তু ক্যালেন্ডার ইত্যাদি তৈরী করতে প্রচুর সময় লাগে।  
বাড়ি থেকে বাজারে আসা যাওয়ার জন্য একটা বাইক দরকার। বাজেট ও কম।

এন্ড্রয়েডের সর্বশেষ সংস্করণের নাম হচ্ছে Android 9 Pie

বর্তমানে আমি নিজে ইউজ করছি। 

আপনি ডিপ্রেশনে আছেন। দেখুন ভাই পৃথিবীতে কেউ ই ১০০ ১০০ সুখে নেই। নাক যতক্ষণ আছে নাকের অসুখও থাকবে। তেমনি জীবন যতক্ষন আছে এর ভাল মন্দ থাকবেই। চিন্তা করে কোন কিছু পরিবর্তন করা সম্ভব না। তার চেয়ে এই রমযানে ৫ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে পড়ুন। আল্লাহর সাথে নিজের অন্তরকে সংযুক্ত করুক। মৃত্যু কে নিয়ে ভাবুন। মৃত্যুর পরবর্তী অবস্থা নিয়ে ভাবুন। আর আত্মহত্যা করার অধিকার আল্লাহ আপনাকে দেয় নি। মনে রাখবেন আল্লাহ পরিক্ষা করছেন এই পরিক্ষায় পাশ করে এগিয়ে যেতে হবে। জীবন যে আল্লাহ দান করছেন মৃত্যু তার হাতে। আর মনে রাখবেন আত্মহত্যা খুনের চেয়েও মারাত্মক কারন এতে অনুশোচনা বা তওবার সুযোগ থাকে না।                                 

আমাকে সঠিক সমাধান টা কি?

এনএইচমিজান
May 16, 12:25 PM

হালাল উপার্জন ইবাদত কবুলের পূর্বশর্ত। উপার্জন হালাল না হলে বান্দার দোয়া ও ইবাদত কোনো কিছুই কবুল হয় না। তাই মুমিনের প্রধান দায়িত্ব হালাল উপার্জন করা এবং হারাম বর্জন করা। কিন্তু যথাযথ জ্ঞান না থাকায় অনেকেই জড়িয়ে পড়ে হারামের সাথে। ফলে নষ্ট হয় সারা জীবনের আমল ও ইবাদত।


অতএব এর জন্য তওবা করে হারামের রাস্তা থেকে ফিরে আসুন। হালাল রিযিক দ্বারা জীবন পরিচালনা করুন।  

ইচ্ছেমত। লিমিট নাই। 
বৈপিত্রেয় ভাই বোন সমান পায় 
G611f এই মডেলের জন্য। কার্যকরী লিংক দিবেন 
প্রমান দিলে ভাল হয়

অবশেষে সব প্রমান পেলাম?

এনএইচমিজান
Feb 12, 04:34 AM
স্ব্মি স্ত্রীর যে  কোনো কারণে মনোমালিন্য হয়ে যায়, স্বামী দ্রুত কোনো সিদ্ধান্ত নিবে না। বরং কুরআনের ভাষ্য অনুযায়ী প্রথমে বুঝাবে পরে বিছানা পৃথক করে দিবে। নিতান্তই বাধ্য হলে সামান্য প্রহার করবে। তাতেও যদি কাজ না হয় আল্লাহপাক বলেন, وَاِنْ خِفْتُمْ شِقَاقَ بَيْنِهِمَا فَابْعَثُوْا حَكَمًا مِنْ اَهْلِه وَحَكَمًا مِنْ اَهْلِهَا اِنْ يُرِيْدَا اِصْلاَحًا يُوَفِّقِ اللهُ بَيْنَهُمَا اِنَّ اللهَ كَانَ عَلِيْمًا خَبِيْرًا (النساء-۳٥) ‘যদি তাদের মাঝে বিরোধ-বিদ্বেষ বৃদ্ধি পাবার কেবল আশঙ্কা করো, তাহলে স্বামীর তরফ থেকে একজন এবং স্ত্রীর তরফ থেকে একজন শালিস নিয়োগ করো। তারা উভয়ে নিষ্পত্তি চাইলে আল্লাহ তাদের মাঝে মীমাংসার অনুকূল অবস্থা সৃষ্টি করে দিবেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বজ্ঞ ও পরিজ্ঞাত।’ আয়াত দ্বারা বোঝা যায়, শালিস সৎ নীতিনিষ্ঠ হওয়া চাই, আন্তরিকভাবে যে সমাধান চায়। অন্যথায় জটিলতা কেবল বাড়তেই থাকবে। এমন গিরা লাগবে শেষে বিচ্ছেদ ছাড়া উপায় থাকবে না।  হযরত থানবী রহ. এই আয়াতের ব্যাখ্যামূলক অর্থ লেখেন, লক্ষণ দেখে যে সকল স্ত্রীদের অবাধ্যতার আশঙ্কা করো প্রথমে তাদের বোঝাও। না মানলে বিছানা আলাদা করে দাও। এতেও কাজ না হলে সামান্য প্রহার করো। তাতে যদি তারা তোমাদের অনুগত হয়ে যায় অহেতুক বাহানা খুঁজো না। তোমরা যারা অভিভাবক তোমাদের যদি মনে হয় তাদের মাঝে সংঘাত সংঘর্ষ কেবল বাড়তেই থাকবে, মিলমিশের কোনো সম্ভাবনা নেই, তাহলে বিচক্ষণ প্রজ্ঞাবান একজনকে স্বামীর পক্ষ থেকে আরেকজনকে স্ত্রীর পক্ষ থেকে শালিস নিযুক্ত করো। তারা উভয়ের সাথে কথা বলে, আলোচনা পর্যালোচনা করে, উভয়ের দোষত্রুটি ও দুর্বলতা বিশ্লেষণ করে দেখবে প্রকৃত দোষ কার? কীভাবে তাদের মনোমালিন্য দূর করা যায়? সমস্যা সমাধানে তারা যদি আন্তরিক হয় আল্লাহপাক তৌফিক দান করবেন। নিঃসন্দেহে আল্লাহ তাআলা বড় জ্ঞানী ও সর্বজ্ঞ। কোনো পদ্ধতিতে তাদের মাঝে সমঝোতা হতে পারে তা তিনি জানেন। শালিসগণ আন্তরিক হলে সে পদ্ধতি তিনি তাদের অন্তরে ঢেলে দিবেন। [বয়ানুল কুরআন] মোটকথা শালিসদ্বয় ইখলাস ও আন্তরিকতার সাথে তাদের মতানৈক্য দূর করার চেষ্টা করবে। বুঝিয়ে শুনিয়ে পরস্পর মিলিয়ে দিবে। স্বামী-স্ত্রীর নৈতিক দায়িত্ব শালিসদ্বয়কে সহযোগিতা করা এবং তাদের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে সেমতে আমল করা এবং মুহাব্বতপূর্ণ সুখী সুন্দর জীবন যাপন করা।
সাথে শপ থাকলে ভাল হয়
শরীয়তের দৃষ্টিতে যদি সমতা বজায় রাখতে পারে তাহলে একজন পুরুষ একই সাথে চারটি বিয়ে করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে শারীরিক অক্ষম এর প্রয়োজন নেই। সুতরাং আপনি বিয়ে করতে পারবেন তবে হা ইনসাফ যদি বজায় রাখতে পারেন।