কত মানের রেজিষ্টর দিবো.?

ইমরানহুসাইনpb
Sep 15, 09:26 AM

আমি একটি ডিভাইস বানাতে চাই,"water level indicator ".এটা বাসার ছাদে থাকা পানির ট্যাংকে পানির পরিমাণ নির্ণয় করা যায়।পার্স গুলো হলো:-

১.5 টি  LED বাল্ব (ছোট)।

২.9v ব্যাটারি।

৩.100 ওহমস রেজিষ্টর ৫টি।

৪.কিছু তার

ভিডিওতে এটা বানাতে ওরা 9v ব্যাবহার করেছে।কিন্তু আমার কাছে কোন 9v ট্রান্সফরমার নাই। 6v ট্রান্সফরমার আছে।এই সার্কিটে 6v দিলে কম আলো হয়,তাহলে 6 v এর জন্য এখানে আমি কত মানের রেজিষ্টর ব্যাবহার করবো?

দয়া করে জানাবেন


এটা কত ভোল্টের ট্রান্সফরমার?

ইমরানহুসাইনpb
Aug 10, 03:45 PM


১.তুমি কভু দেখা দাও হে অরন্য, তবে হবেই হবে হৃদয় আমার ওগো ধন্য।

২.ঈমানের পথে অবিচল থেকে আমার মরণ যেন হয়।

৩.কোন এক দিন এদেশের আকাশে কালেমার পতাকা উঠবে সেদিন সবাই খোদায়ী বিধান পেয়ে দুঃখ বেদনা ভুলবে।

৪.পৃথিবী না জানুক আমি তো জানি আমি কি পাপ করেছি হায়।

৫.এমন যদি হতো আমার দেশের শাসক হতো।

হার্ট ফেইলরঃ

হৃৎপিণ্ড যদি কোন কারনে পর্যাপ্ত পরিমানে রক্ত পাম্প বা সরবরাহ করতে না পারে সেই অবস্থাকে বলে হার্ট ফেইলর।

মায়ের গর্ভে ৪ সপ্তাহ বয়সে হঠাৎ হৃৎপিণ্ডের জেনারেটর গুলো তৈরি হয় এবং চালু হয়। সেই যে চালু হয় তা লাব-ডাব ছন্দ নিয়ে নাচতে থাকে মৃত্যু পর্যন্ত। এটি মহান আল্লাহ রাব্বুল আ'লামীনের মানব দেহের স্থাপিত এক অপুর্ব নিদর্শন৷ বুকের বামপাশে হাত রাখলে যার অস্তিত্ব টের পাওয়া যায়।


Dream Achieve, ভাই,যে উপদেশগুলো দিয়েছে আপনার সমস্যাগুলো থেকে বের হওয়ার জন্য ওগুলোই যথেষ্ঠ।তবে আপনি উপরের বিষয়গুলো ভালো করে পালন করবেন এবং যত দ্রুত সম্ভব একজন ভালো হোমিও চিকিৎসক বা মেডিসিন ডাক্টারের সাথে পরামর্শ করুন।আপনি বললেন,বাম অন্ডকোষে শিরাগুলো পেঁচিয়ে কুন্ডলি পাকিয়ে আছে।এটা ভেরিকস ভেইন বা ভেরিকোসিল হতে পারে।অন্ডোকোষের চারপাশে শিরাগুলো পেঁচিয়ে থেকে শুক্রাণু যেতে বাধা দেয়,যার কারনে পুরুষ বন্ধ্যা হয়ে যায়।পরবর্তীতে আরো বেশি সমস্যা হতে পারে।আপনি আর মোটেও এটা অবহেলা করবেন না।আর অন্ডকোষ কমবেশি সকলেরই নিচের দিকে ঝুলে থাকে,এ নিয়ে চিন্তা করবেন না।পুষ্টিকর খাবার খান,ঢিলে-ঢালা পোষাক পরিধান করুন অন্ডকোষে বীর্য বৃদ্ধি পেলে অন্ডকোষ উপরের দিকে উঠে আসবে।,হস্তমৈথন,পর্ণোগ্রাফি,অশ্লিল গল্প,বাজে যৌন চিন্তা পুরোপুরিভাবে ত্যাগ করুন।নিয়মিত নামাজ পড়ুন,ধর্মিয় অনুশাসন সমূহ মেনে চলুন।ইনশাহ আল্লাহ আস্তে আস্তে সব ঠিক হয়ে যাবে।

IUPACএর পূর্ণরুপ কি?

ইমরানহুসাইনpb
Feb 19, 07:21 PM
IUPAC=International Union Of Pure And Applied Chemistry. আন্তর্জাতিক বিশুদ্ধ ও ফলিত রসায়ন সংস্থা সংক্ষেপে-আই.ইউ.পিএ.সি, IUPAC) হল একটি আন্তর্জাতিকযেটি বিভিন্ন দেশের রসায়ন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে পরিচালিত হয়ে থাকে। সুইজারল্যান্ডের রাজধানী জুরিখে এর সদরদপ্তর অবস্থিত। এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ক্যারোলিনায় এর প্রশাসনিক কার্যালয় রযেছে।
কামরসকে আরবিতে মযী বলা হয়।এটি বীর্যপাতের পূর্বে নির্গত হয়।এটি সেমিনাল ভেসিকেল থেকে উৎপন্ন হয়ে ভাস ডিফারেন্স(শুক্রনালিকে) পিচ্ছিল করে,যাতে সবেগে বীর্য বেরিয়ে আসতে পারে।কামরস বের হওয়ার ফলে অযু নষ্ট হয় কিন্তু গোসল ফরজ হয় না।তাই ওযু অবস্থায় কামরস নির্গত হলে পুণরায় ওযু করে নামাজ আদায় কর করা যাবে।কামরস নির্গত শারীরিক সমস্যার কারণেও হতে পারে আবার অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের কারণেও হয়।তাই পুরোপুরিভাবে হস্তমৈথুন ত্যাগ করুন,এটা ইসলামে হারাম।যদি কামরস শুকিয়ে যায় দৃশ্যমান হয় তাহলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন,আর যদি দৃশ্যমান না হয়,এবং তবুও সন্দেহ থাকে তাহলে ওযুর পর একটু পানি ছিটিয়ে নিবেন।এর জন্য গোসলল ফরজ হয় না।

কামরস শুকিয়ে গেলে বিধান কি?

ইমরানহুসাইনpb
Feb 8, 10:46 AM
যদি শুকিয়ে গিয়ে থাকে,তারপরেও দৃশ্যমান থাকে তাহলে স্থানটি ধৌত করুন।আর যদি দৃশ্যমান না হয় তারপরেও আপনার সন্দেহ হয় তাহলে ওযুর পরে কিছু পানি ছিটিয়ে নিন।এটির জন্য গোসল ফরজ হয় না।
আল্লাহর উপর পরিপূর্ণ আস্থা,বিশুদ্ধ নিয়ত,একাগ্রতার সাথে কাজটি করা বা কথাটি বলা,নিজেকে সফলতার প্রতি স্থির রাখা এবং সর্বাত্বক প্রচেষ্টার মাধ্যমে কাজটি করা বা কথাটি বলা।
আপনার বয়সটা উল্লেখ করেন নি।আপনার বয়স যদি ১৩-১৯ এর মধ্যে হয় অর্থ্যাৎ আপনার বয়োঃসন্ধি চলে তাহলে কিছুদিন এমনটি হবে,দুশ্চিন্তার কিছু নেই।এমনটা সবারই হবে।আর যদি এর বেশি বয়স হয়, তাহলেও এটা তেমন কোন সমস্যা নাই।বেশি বেশি পানি  পান করুন,দিনে কমপক্ষে  ৮-১০ গ্লাস।

দয়া করে লোকেশন,রোড বলুন?

ইমরানহুসাইনpb
Dec 19, 06:56 PM
আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, লোকেশন-২,পীরগন্জ মাজার,মতিঝিল।এটার সঠিক লোকেশনটা কোথায়.?।কলেজটাতে মিরপুর থেকে কিভাবে, এবং টেকনিক্যাল মোড় থেকে কিভাবে যেতে হবে।দয়া করে একটু জানাবেন। 
বিজ্ঞান শুধু মাত্র মানুষের দৈহিক,মানসিক এবং কিছু চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।কারো ব্যাক্তিগত কাজ বা ইচ্ছা-আকাঙ্খার ব্যাখ্যা দেয়য় নাই।মানবদেহে অসংখ্য জিন থাকে।প্রতিটি কাজের/বৈশিষ্ট্যের জন্য আলাদা আলাদা জিন। জিনতত্ত্বে বলা হয়েছে, পিতার থেকে একটা জিন এসে মাতার জিনের সাথে মিলিত হবে এসময় যে জিনটা বেশি প্রভাব বিস্তার করবে সেটির বৈশিষ্ট্য অনুযায়িই সন্তান জন্ম নিবে।যেমন ধরুন,শরীরের রং কি রকম হবে? এক্ষেত্রে পিতা যদি কালো হয় আর মাতা যদি ফর্সা হয়,তাহলে এ দুটো জিন একত্রিত হবে।এসময় পিতার জিন বেশি প্রভাব ফেললে সন্তান কালো আর মাতার হলে ফর্সা হবে।ঠিক এমন ভাবেই সন্তানের চুলের রং,নাক,কান,ঠোট,চেহারার গঠন,ভ্রু,উচ্চতা,রাগি স্বভাব/মিষ্ট স্বভাব,হাত পায়ের আঙ্গুল ও নখ ইত্যাদি জিন দ্বারা গঠিত হয়।কিছু কিছু জিন শুধু মাত্র পিতা বা মাতার উপর ভিত্তি করে গঠিত হয়।যেমন,যদি ছেলে সন্তান হয় তাহলে পিতার বা বংশের পুরুষ অনুযয়ি জনন তন্র গঠিত হবে।অর্থ্যাৎ,পিতার বা বংশের লোকেদের যদি পুরুষাঙ্গ বড় থাকে তাহলে সেই ছেলেরও পুরুষাঙ্গের আকার তাদের মতে হবে এবং অন্ডকোষও।এমনি ভাবে মেয়ে সন্তানের ক্ষেত্রেও মায়ের ও মায়ের বংশের মানুষের  মতো যোনি,স্তন ইত্যাদি হবে।এছাড়াও কিছু কিছ জিনের সঠিক ভাবে মিলন না হওয়ার কারনে একদম নতুন ধরনের বৈশিষ্ট্য তৈরী হয়।সুতরাং,ব্যাক্তিগত জিবনে পিতা বা মাতা যা করবে সন্তানও যে তাই করবে এটা ভুল ধারনা।কারো জৈবিক প্রয়োজনে বা চাহিদা অনুযায়ি যদি কয়েকটি বিবাহ করে তার মনে এই নয় যে তার ছেলেও অনেক বিবাহ করবে।কারণ,এটা তার একান্তই ব্যাক্তিক এবং চারিত্রিক আচরন।
আমার উত্তর দেওয়ার পরে যদি প্রশ্ন কর্তা কিছু জিজ্ঞেসস করে তাহলে আমি মন্তব্য করতে পারছি না এবল কোন সতর্কও করতে পারছি না।করতে গেলে আপনার ইমেইল যাচাই করুন এমন লেখা আসে কিন্তু  কিন্তু  যাচাই কারার জন্য কোন কোড আসে না।
তালবিনা হলো এক প্রকার হালকা  মিষ্টি তরল জাতিয় খাবার।এটা আটা,চিনি আর হালকা তেল দিয়ে কিছুক্ষণ আগুনে যাল দিয়ে তৈরী করা হয়।হাদিসে এসেছে এ খাবারটি যখন কেউ মারা যেত তখন তার বাড়িতে রান্না করে নিয়ে গিয়ে আত্মিয়-স্বজনকে খাওয়ানো হতো।এতে আল্লাহর রহমতে তাদের শোক কিছুটা কমে যেত।এটাই তালবিনা খবার।
একজন সুস্থ পুরুষর মাসে ৪ বার স্বপ্নদোষ হয়ে থাকে।আপনি হস্তমৈথুন ত্যাগ করুন।আর পর্ণোগ্রাফি ও অশ্লিল গল্প সম্পূর্ণ ত্যাগ করুন,বাজে যৌন চিন্তা করবেন না,রাতে ঘুমানোর আগে প্রোসাব করে ঘুমাবেন,আর ঘুমানোর পূর্বে বিছানার উপর সূরা আত তারিক পড়ে কোন কথা বার্তা না বলে সঙ্গে সঙ্গে ডান কাত হয়ে ডান গালের নিচে ডান হাত দিয়ে ঘুমের দোয়া+আয়তুল কুরসি+যে সব সূরা,দোয়া পারেন সেগুলো পাড়তে পাড়তে ঘুমিয়ে পরবেন।ইনশাহ আল্লাহ সুস্থ হয়ে যাবেন।
ইসলাম যেটা কখনই সমর্থন করে না সেটা দিনে একবার হোক বা বছরে একবার হোক সেটা কখনই করা যাবে না।আর হস্তমৈথুন যেরকম শারীরিক সমস্যা করে তেমনি মানসিক সমস্যাও করে।এটা বিভিন্ন  মেডিকেল গবেষণায় প্রমাণিত।এটি করার সময় ব্রেইনে ডোপামিন নামক  এক প্রকার হরমোন নিঃস্বৃত করে যেটা এক সময় স্বভাবিক যৌন উত্তেজনা তৈরীতে ব্যাঘাত ঘটায়।আর যদি আপনি নিয়মিত মাসে একবার করেন তাহলে একটা সময়ে আপনি সপ্তাহে একবার করার অভ্যাস চলে আসবে তার পরে প্রতিদিন একবার এমন ভাবে আরও ঘন ঘন কারর অভ্যাস চলে আসবে।তাই আপনি হস্তমৈথুন পুরোপুরিভাবে ত্যাগ করুন।তার জন্য সর্বোপ্রথম পর্ণোগ্রাফি,অশ্লিল গল্প পরিকার করতে হবে।নিয়মিত নামজ আদায় করবেন,কুরআন পড়বেন,পাক পবিত্র থাকবেন,বেশি বেশি জানাযার নামাজ পড়ার এবং কবরস্থানে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।আর কিছু জানার থাকলে প্রশ্ন করবেন।পারলে "মুক্ত বাতাসের খোজে" বইটি পড়ুন।দরকার হলে আপনার email address দিন আমি পাঠিয়ে দিবো।ধন্যবাদ।
একটু ঢিলে-ঢালা পোশাক পরিধান করুন,নক দিয়ে চুলকাবেন না,দরকার হয় কিছুদিন আন্ডারওয়্যার পরবেন না,নিম পাতা+কাঁচা হলুদ দিয়ে গরম পানি করে ওখানে ঢালবেন আর গোসল করবেন।আর হামদর্দের "কুলজম" ৭০/= টাকা দাম নিবে প্রতিদিন রাতে শোয়ার সময় লাগিয়ে শোবেন।ইনশাহ আল্লাহ ১ বার লাগালেই উপকার পাবেন।
১.শনিবার=ইয়াওমুস সাবতি। ২.রবিবার=ইয়াওমুল আহাদি। ৩.সোমবার=ইয়াওমুল ইছনাইনি। ৪.মঙ্গলবার=ইয়াওমুল । ৫.বুধবার=ইয়াওমুল আরবায়া। ৬.বৃহস্পতিবার=ইয়ামুল খমছি। ৭.শুক্রবার=ইয়াওমুল জুম'আ। [বি.দ্র:আগর উত্তরদাতা ভুল উত্তর দিয়েছেন ,ওনাকে সতর্ক করুন।

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে তড়িৎ উৎসটি কত ভোল্টের (V)  আর লাইট বা মোটর ইত্যাদি যেটি ব্যাবহার করবেন সেটি কত ভোল্টের (V) ।তারপর সেই লাইট বা ফ্যান এর এ্যাম্পিয়ার (A) বের করতে হবে।যদি মিলি এ্যাম্পিয়ার (mA) লেখা থাকে তাহলে তাকে "১০০০" দিয়ে ভাগ দিয়ে এ্যাম্পিয়ার (A) করতে হবে।এরপর অতিরিক্ত ভোল্ট ( V) বের করতে ,V=(উৎস-লাইট বা ফ্যান)V. এরপর রোধের মান, R=(V/I)π (ওহম)। হিসেব করে যে মান বের হবে সে মানের রোধ লাগাতে হবে।এখন, অনেক সময় দেখা যায় ঠিক মানের রোধ ব্যাবহার করেও রোধটি গরম হয়ে যায়।তার কারণ,রোধটির মান ঠিক আছে কিন্তু আকারটি ঠিক নাই।তাই আকার নির্ণয়ের জন্য, "P=(V.I) A. P" এর মান 1 এর চেয়ে কম হলে কোয়াটার ,1 হলে 1/2 (হাফ) এবং তার থেকে বেশি গুলোতে 1 মানের রেজিস্ট্যান্স বসাতে হবে।ছবিতে যে উদাহরণ দেওয়া আছে,সেটার মান "0.1375 A" তাই এখানে "220π (ওহম)Upload failed: [object Object]image image " এর কোয়াটার রোধ (রেজিস্ট্যান্স) দিতে হবে।

একটি সার্কিটে 220k রোধ (রেজিট্যেন্স) দেওয়া আছে।এটা দিয়ে ৬০ ওয়াট (লাল আলো হয়) বাল্ব জ্বলে।ওখানে যে কোন ওয়াটের এনার্জি বাল্ব লাগালে জ্বলছে না।দয়া করে বলুন ১৫/২২/৩০ ইত্যাদি ওয়াটের এনার্জি বাল্বের জন্য কত মানের রোধ (রেজিট্যেন্স) ব্যাবহার করবো.?
ঈমামকে অনুসরন করা ফরজ।তাই নামাজে জামায়াতবদ্ধ অবস্থায় ঈমাম যা যা করবে মুক্তাদিরও তাই তাই করতে হবে।আর সাহু সিজদা দেওয়ার জন্য সালাম ফিরালে ওটা নামাজ শেষকরার সালাম হয় না।জামাতে নামাজে ঈমাম সাহেবের ওয়াজিব ছুটে গেলে ঈমামের সাথে সাথে সাথে  মুক্তাদিদেরও সাহু সিজদা দিতে হবে,আর যদি মুক্তাদির ছুটে যায় তাহলে তাকে আর আলাদা করে সাহু সিজদা দিতে হবে না।তাই তো,মুসাফির অবস্থায় যেহেতু নামাজ কসর করতে হয় কিন্তু যদি মুকিম ঈমামের পেছনে নামাজে দাঁড়ায় তাহলে ঈমামের সাথে সাথে তাকে সম্পূর্ণ নামাজই আদায় করতে হবে।
কম হলে বেশি বেশি পানি পান করুন।
এটা কোন সমস্যা না।তিদিন পুষ্টিকর খাবার খাও,বেশি বেশি পানি পান করবে,সকালে ব্যায়াম করবে,বিকেলে হাঁটা-হাঁটি করবে। আর পারলে সকালে বাসি পেটে রাতে ভিজিয়ে রাখা কাঁচা ছোলা খাবে।অনেকের ক্ষেত্রে বয়োঃসন্ধি এর প্রকাশ অথবা বয়স বাড়ার চিহ্ন একটু দেরীতে প্রকাশ পায়।এতে চিন্তিত হওয়ার কিছুই নেই।যদি বয়স বাড়ার অন্যান্য আলামত (গলার স্বর মোটা হওয়া,বীর্যপাত হওয়া,বগলে ও যৌনকেশ ওঠা) গুলো প্রকাশ পায় তাহলে তোমার কোন সমস্যা নাই।আমার এক ক্লাস মেট এমন,যাকে দেখে মনে হয় কেবল ৪/৫ এ পড়ে,গোফ,দাড়ি ওঠে নাই,গলার স্বরও চিকন,হাত -পা ছোট মানুষের মতো। তবে এটা বেশি দিন থাকবে না বয়স বাড়ার একটা পর্যায়ে এসব কিছু ঠিক হয়ে যায়।তোমারও চিন্তার কিছু নাই।সিষম খাবার খাও,ব্যায়াম করো আর যে সমস্ত কাজ শরীর ও মনের ক্ষতি করে (হস্তমৈথুন,পর্ণোগ্রাফি,অশ্লিল গল্প) তা থেকে দূরে থাকো।আর কিছু জানার থাকলে জিজ্ঞেস করো...।
পর্ণোগ্রাফি, অশ্লিল গল্প বাজে যৌন চিন্তা পরিত্যাগ করুন। শয়ন কালে বিছানার উপর বসে সূরা আত তারিক পাড়ে কোন কথা-বার্তা না বলে ডান কাত হয়ে ডান হাত ডান গালের নিচে দিয়ে আয়াতুল কুরসি সহ যে সূরা ও দোয়া পারেন পড়তে পড়তে ঘুমিয়ে যাবেন। আর দরকার হলে যদি লুঙ্গি পরে ঘুমানোর অভ্যাস থাকে তাহলে ঘুমানোর সময় পায়ের দিকে লুঙ্গি গিরা দিয়ে ঘুমান তাতেও কাজ না হলে হুক এবং চেইন আছে এমন প্যান্ট পরে কিছু দিন ঘুমান। ইনশাহ আল্লাহ কিছু দিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে যাবেন।
বিবাহ করা ফরজ→যে ব্যাক্তির আর্থিক এবং শারীরিক সামর্থ্য আছে এবং সে যৌন বাসনা নিয়ন্ত্রন করতে পারছে না,তার উপর বিবাহ করা ফরজ, বিবাহ করা সুন্নত→যে ব্যাক্তির আর্থিক এবং শারীরিক সামর্থ্য আছে এবং সে যৌন বাসনা নিয়ন্ত্রন করতে পারবে কিনা ভয় আছে,এক্ষেত্রে তার উপর বিবাহ করা সুন্নত। বিবাহ করা নফল→যে ব্যাক্তির আর্থিক এবং শারীরিক সামর্থ্য আছে এবং সে যৌন বাসনা নিয়ন্ত্রন করতে পারবে এক্ষেত্রে কোন সন্দেহ নাই,এক্ষেত্রে তার উপর বিবাহ করা নফল। বিবাহ করা হারাম→যে ব্যাক্তির শারীরিক সামর্থ্য নাই (হিজরা),এক্ষেত্রে তার উপর বিবাহ করা হারাম। খেয়াল করুন এখানে বন্ধ্যাত্বের কোন কথাই বলা হয় নি।কারণ,মেডিকেল পরিভাষায় বন্ধ্যাত্ব কোন যৌন ক্রিয়ার অক্ষমতা নয়,এটি শুধু মাত্র সন্তান জন্ম দিতে অক্ষমতাকে বুঝায়।তবে সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা নিলে আল্লাহ চাইলে তাদের সন্তান জন্মদানের সক্ষমতা দিয়ে দিবেন।এমন হাজারো দম্পতি আছেন, যারা সঠিক চিকিৎসা গ্রহণের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিতে পেরেছেন। তাই কেউ যদি আগে থেকে বন্ধ্যাত্বের রিপোর্ট পেয়ে বিবাহ করতে সম্মত না হয় তাহলে এটাকে ইসলাম সমর্থন করে না।কারণ,সব কিছুর মালিক আল্লাহ তায়াল।

কফে রক্ত পড়তেছে?

ইমরানহুসাইনpb
Nov 26, 08:06 AM

কত দিন ধরে এটা হচ্ছে.?.দেরি না করে যত দ্রুত সম্ভব আপনি একটা ভালো মেডিসিন ডাক্টার দিয়ে দেখান।আমার এক আত্মিয়ের এ রকম হতো পরিক্ষা করে যানা যায় ওনার "Mototic Labion Rt DM " হয়েছে।উনি  গত ৩৮ দিন আগে মারা গিয়েছেন।ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডা. মো.হাবিবুল হক (হাবিব)MBBS (ঢাকা) -ইনি  খুব ভালে একজন ডাক্টার এনার চিকিৎসা নিন ।ইনশাহ আল্লাহ ঠিক হয়ে যাবে।image

জ্বী ভাই এখানে বিশ্বাস অবিশ্বাসের কথা নয় আর এ নিয়ে কোন দ্বন্দ্বে জড়ানো কোন ভাবেই ঠিক নয়,ইসলাম সমর্থনন করে না।এখন, কুরআনের ১১৪ টি সূরার মোট আয়ত ৬২৩৬ টি তবে কিছু কিছু সূরার কিছু আয়াত আছে যেগুলো অনেক বড় বড় (যেমন সূরা বাকারা শেষের দিকের আয়াত ২৮২) তাই অনেক ওলামাগণ  হেফজ করার সুবিধার্থে বড় আয়াতগুলো ভেঙ্গে  ছোট কয়েকটি আয়াত করেছে।এ ভাবে ৬৬৬৬ টি আয়াত হয়েছে।এটা যদি কেউ বিশ্বাস তাহলেও কোন সমস্যা নাই বা তার ঈমান চলে যাবে এটা কেউ বলতে পারবে না।কারণ,৬৬৬৬ এর মধ্যে ৬২৩৬ আছে ।আবার যদি কেউ ৬২৩৬ টি বিশ্বাস করে তাহলেও সমস্যা নাই বা তার ঈমান নাই কেউ বলতে পারবে না।তাই,ভাই এগুলো নিয়ে বিতর্কে লিপ্ত হবেন না,ইসলাম বিদ্বেষীরা মুসলমানেরা নিজেদের মধ্যে মতভেদে লিপ্ত হোক এটাই চায়।
শরীরের মধ্যে বীর্যের পরিমাণ বেড়ে গেলে স্বপ্নদোষের মাধ্যমে বের হয়ে যায় বা হালকা উত্তেজনার সময় কিছুটা বের হয়ে যায়।আপনার ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।আলহামদুলিল্লাহ  আপনি হস্তমৈথুন ছেড়ে দিয়েছেন।এর ফলে আপনার যৌন শক্তি অনেকগুন বেড়ে গিয়েছে।তাই উত্তেজক কিছু না দেখলেও হঠাতই পুরোপুরি ননা হলেও একটু  উত্তেজিত হয়ে যায়।আপনারও তাই হয়েছে।এটা স্বাভাবিক,কোন সমস্যা না,চিন্তিত হবেন না।পুষ্টিকর খাবার খান আর ব্যায়াম কুরুন।এতে পূর্বের হস্তমৈথুন এর প্রভাবও কেটে যাবে।ইনশাহ আল্লাহ। 
আপনি হস্তমৈথুন সম্পূর্ণ ত্যাগ করুন।সাথে পর্ণোগ্রাফি, অশ্লিল গল্প (চটি) ইত্যাদিও ত্যাগ করতে হবে।এগুলো যেমন শারীরিক ক্ষতি করে, ঠিক একইভাবে মানসিক ক্ষতিও করে।অনেক লেখা বা ভিডিওতে দেখায় "হস্তমৈথুন খারাপ কিছু না বা এটাতে কোন ক্ষতি হয় না" এসব আসলে ওদের কারসাজি ওদের এ ফাঁদে পা দেবেন না।হস্তমৈথুন ছাড়ার কৌশনলগুলো মেনে চলে এটা পরিপূর্ণ ভাবে ত্যাগ করুন।আর নিয়মিত পুষ্টিকর,সুষম খাবার খান,বেশি বেশি পানি পান করুন,সকালে ফ্রেস বাতাস গ্রহণ করুন সাথে ব্যায়ম করুন, এতে মনও ফ্রেস থাকবে এবং শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণ রক্ত চলাচল করে শারীরিক সমস্যাগুলো দূর করবে।ইনশাহ আল্লাহ